আপাত তিন দিন জট কাটছে না। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্ট স্থগিত রেখেছে করোনাভাইরাস টিকাদান নীতিমালা সংক্রান্ত শুনানি। রবিবার প্রায় মধ্যরাতে কেন্দ্রীয় সরকার এই বিষয় হলফনামা দাখিল করে। সেখানেই বিচারবিভাগীয় হস্তক্ষেপ না করার আবেদন  জানান হয়েছে। 

আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত স্থগিত থাকবে কেন্দ্রীয় করোনাভাইরাসের টিকাদান নীতিমালা সংক্রান্ত শুনানি। সোমবার সকালে নির্ধারিত সময় বেলা ১১টা নাগাদ শুরু হয়েছিল শুনানি। কিন্তু মাত্র ২ মিনিটের মধ্যেই প্রযুক্তিগত বিভ্রাটের জন্য বিচারকদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন হয়ে যায়। কয়েক মিনিট পর  তিন বিচারক- ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, এনয়এন রাও ও এস রবীন্দ্র ভাট জানিয়েদেন সার্ভার ডাউন রয়েছে। আর সেই কারণেই বৃহস্পতিবার পর্যন্ত শুনানি স্থগিত রাখা হচ্ছে।রবিবার গভীর রাতে কেন্দ্রীয় সরকারে একটি হলফনামা জমা দিয়েছিল। এদিন সেটি নিয়ে শুনানি হওয়ার কথা ছিল। 

গত সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্ট দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয় স্বতোঃপ্রণোদিত হয়ে মামলা দায়ের করেছিল। শীর্ষ আদালতের উত্থাপিত প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় সরকার রবিবার প্রায় মধ্যরাতে হলফনামা দায়ের করেছিল। সেই হলফনামায় 'বিচারবিভাগীয় হস্তক্ষেপ' না করার আবেদন জানান হয়েছে।একই সঙ্গে বলা হয়েছে 'অতিমাত্রায় হস্তক্ষেপের ফলে অপ্রাত্যাশিত ও অনিচ্ছাকৃত পরিণতি হতে পারে।' কেন্দ্রের হলফনামায় দাবি করা হয়েছে বিশ্বব্যাপী মহামারির প্রেক্ষাপটে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বৈজ্ঞানিত মতামত নিয়ে দেশের করোনা পরিস্থিতি মোকিবিলা করা হচ্ছে। হলফনামায় স্পষ্ট করে বলা  হয়েছে এক্ষেত্রে বিচারবিভাগীয় হস্তক্ষেপের জায়গা খুবই কম। 

মাউন্ট এভারেষ্টের শীর্ষে 'বিচ্ছেদ লাইন', করোনা সংক্রমণ রুখতে আজব খেয়াল চিনের ...

কেন্দ্রীয় সরকার আরও বলেছেন ভ্যাকসিনের মূল্য নির্ধারণ করা কেবল যুক্তিসঙ্গতই নয় দেশজুড়ে সমানভাবে দুটি সরবরাহের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার দুটি সংস্থার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে বেশ কয়েকটি রাজ্যে ১৮-৪৫ বছর বয়সীদের বিনামূল্য ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনার কথাও ঘোষণা করেছে।  

জনপ্রিয় টেলি অভিনেত্রীর মন্তব্যে সরগরম নেটদুনিয়া, কী এমন বললেন মুনমুন দত্ত ...

ভ্যাকসিনের দামের বৈষ্যম্য নিয়ে আগেই প্রশ্ন তুলেছিল সুপ্রিম কোর্ট। সেখানে বলা হয়েছিল ভ্যাকসিনের দাম পুনর্বিবেচনার নির্দেশ দিয়েছিল। বলা হয়েছিল এটি ১৪ অনুচ্ছেদের (আইনের সাম্যতা) পরিপন্থী। এবং ২১ অনুচ্ছেদের (জীবন ও ব্যক্তিগত স্বাধীনতার সুরক্ষা) প্রতিরোধ নিশ্চয়তা করা জরুরি। তবে এখন এখনও দেশে বেশ কয়েকটি রাজ্য চাহিদা মত টিকার যোগান না থাকার অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে। অন্যদিকে বেসরকারি হাসপাতাল ও রাজ্য সরকারগুলিকে কেন্দ্রের থেকে বেশি টাকায় টিকা কিনতে হচ্ছে বলেও সরব হয়েছে। 

কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে ভ্যাকসিন সরবরাহের ৫০ শতাংশ বিনামূল্য রাজ্যগুলিকে সরবরাহ করা হবে। তবে বাকি ৫০ শতাংশ ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি। ভারতে জানুয়ারিতে টিকা কর্মসূচি শুরু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ১৭ কোটি মানুষকে টিকা প্রদান করা হয়েছে।