সম্প্রতি একটি খবর নিয়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছিল স্বাস্থ্য মন্ত্রকের অন্দরে। মাত্র ৩০ মিনিটে করোনা পরীক্ষার ফলাফল জানিয়ে দেয় এমন পাঁচ লক্ষ তিট ভারত সরকার ও একাধিক রাজ্যের তরফে অর্ডার দেওয়া হয়েছিল চিনের এক সংস্থাকে। বিপদের সময় পরিস্থিতি সামাল দিতে এই কিট ব্যাপক কাজে লাগবে মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু সেই কিট নাকি পথ ভুল করে আমেরিকায় চলে গেছে। তবে উদ্বেগ আপাতত কাটতে চলেছে। ১৫ এপ্রিলই ভারতে এসে পৌঁছচ্ছে চিনা কিট। জানালেন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চের  প্রধান বিজ্ঞানী রমন আর গঙ্গাখেদকর।


রাজধানীতে এবার করোনার শিকার একই হাসপাতালের চিকিৎসক সহ ৩ , কোয়ারেন্টাইনে পাঠান হল বাকিদের
আসছে কি তবে 'সেকেন্ড ওয়েভ', চিনে নতুন করে করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তে ঘনীভূত আশঙ্কার মেঘ
আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়িয়েছে, নাচতে ব্যস্ত পাক চিকিৎসকরা, ভিডিও শেয়ার করলেন গম্ভীর

দেশে প্রতিদিনই  করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু পর্যাপ্ত টেস্টিং কিট না থাকায় বাধা পড়ছে  দ্রুত কোভিড-১৯ ব়্যাপিড টেস্টের পরীক্ষা। এই নিয়ে বার বার সমালোচনার ঢেউ উঠছিল দেশের অন্দরে। চিনকে দেওয়া ৫ লক্ষ টেস্টিং কিটের বরাত কবে এসে পৌঁছবে তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিচ্ছিল। কিন্তু এবার করোনা নির্ণয়ে  ব়্যাপিড টেস্ট প্রক্রিয়ার সমাধান হতে চলেছে। আগামী ১৫ এপ্রিল চিন থেকে করোনা পরীক্ষার কিট এসে পৌঁছচ্ছে বলে সাংবাদিক সম্মেলনে জানালেন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চের  প্রধান বিজ্ঞানী রমন আর গঙ্গাখেদকর।
 
তবে চিন থেকে এর মধ্যেটেস্টিং কিট না এসে পৌঁছলেও দেশে করোনা পরীক্ষায় কোনও সমস্যা হত না বলেই দাবি আইসিএমআরের প্রধানের। শ্রী গঙ্গাখেদকর। জানিয়েছেন, রবিবার পর্যন্ত এদেশে ২,০৬,২১২ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এই অবস্থায় দেশের কাছে যে করোনা কিট রয়েছে তা দিয়ে আরও  ৬ সপ্তাহ খুব সহজেই চালান সম্ভব বলে আশ্বস্ত করছেন তিনি।

 
এদিকে এর মাঝেই দেশীয় সংস্থা অইচএলএল লাইফ কেয়ার  সোমবার থেকে মানেসরে নিজস্ব কারখানায় টেস্টিং কিট তৈরি করতে শুরু করেছে। এখানে প্রতিদিন ২০,০০০ কিট তৈরি হবে বলে খবর। এর ফলে আগামী দিনে করোনা সংক্রমণ নির্ণয়ের জন্য র‌্যাপিড টেস্ট প্রক্রিয়া সহজলভ্য হয়ে উঠতে চলেছে ভারতে।