গোটা বিশ্বে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা সংক্রমণের ঘটনা। তাল রেখে পিছিয়ে নেই ভারতও। প্রতিদিনই আসছে নতুন নতুন সংক্রমণের খবর। দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ যত বাড়ছে ততই সোশ্যাল মিডিয়া ছেয়ে যাচ্ছে নানা সত্য-মিথ্যা খবরে। করোনাভাইরাসের থেকেও এখন দ্রুত ছড়াচ্ছে ভুয়ো খবর। কী করলে বাড়িতে বসেই এই মারণ রোগ থেকে মুক্তি মিলবে তা নিয়ে তৈরি হচ্ছে নানা ভিডিও। এমনই এক টিকটক ভিডিওয় খপ্পরে পড়ে হাসরপাতালে ভর্তি হতে হল ২টি পরিবারের ১০ জন সদস্যকে।

ঘটনাস্থল অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তর জেলার আলাপল্লি গ্রাম। কী করলে শরীরে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে আর মারণ করোনা থাবা বসাতে পারবে না সেই নিয়ে একটি টিকটক ভিডিও দেখেছিল গ্রামের ২টি পরিবার। সেই মত ধুতরো ফুলের বীজের রস করে খায় তাঁরা। আর তারপরেই অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয় দুটি পরিবারের ১০ জন সদস্যকে। 

গাড়িতেই এখন দিনযাপন, পরিবারকে বাঁচাতে বাড়ি ছাড়লেন করোনা চিকিৎসক

৩৮১টি সংক্রমণ প্রবণ এলাকা চিহ্নিত মুম্বইতে, আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁতে চলল ৭০০ গণ্ডি

লকডাউনের মেয়াদ বেড়ে হল ৩০ এপ্রিল, কেন্দ্রের আগেই সিদ্ধান্ত ঘোষণা ওড়িশা সরকারের

বারিদিপল্লির সাব-ইন্সপেক্টর মুণি স্বামী জানা, " ২টি পরিবারের ১০ জন্য সদস্য টিকটকে একটি ভিডিও দেখেন। যেখানে বলা হয়েছিল ধুতরো ফুলের বীজ খেলে শরীরে করোনাভাইরাসের প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠে। সেই মত বীজ থেকে রস বার করে খেয়েই ঘটে বিপত্তি।"

ধুতরো ফুলের বীজের রস খাওয়ার পরেই অসুস্থ বোধ করতে থাকেন সকলে। অচৈতন্য অবস্থায় তাঁদের উদ্ধার করে গ্রামবাসীরা। ভর্তি করতে হয় স্থানীয় হাসপাতালে। 

কোভিড ১৯ রোগের এখনও কোনও প্রতিষেধক তৈরি হয়নি। এই অবস্থায় সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া অবৈজ্ঞানিক বিষয়গুলি যাতে মানুষ এড়িয়ে চলেন তার জন্য বারবার অনুরোধ করছে প্রশাসন। ভুয়ো খবর বন্ধ করতে আইনি পদক্ষেপও করছে সরকার। পাশাপাশি মানুষের সচেতনতার দাবিও জানান হচ্ছে। 

চিত্তর জেলার মেডিক্যাল ও হেলথ আধিকারিক ডাঃ এম পেঞ্চালিয়া এই অবস্থায় স্থানীয় মানুষের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মেনেই যাতে সকলে করোনা প্রতিরোধে ঘরোয়া উপায়ের সাহায্য নেন।

 ডাঃ এম পেঞ্চালিয়া বলেন, "এখনও পর্যন্ত কোভিড ১৯এর কোন ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা হয়নি। এই নিয়ে এখনও কাজ চলছে। এই অবস্থায় বাড়িতে থাকুন, নিরাপদে থাকুন এবং সংক্রমণ এড়াতে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরামর্শ মেনে চলুন।"