কিছুদিন আগে ইতালির একটি ছবি ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। দিনরাত এক করে হাসপাতালে কাজ করতে থাকা এক নার্স কোন ফাঁকে নিজের অজান্তেই  কমপিউটারের কি-বোর্ডের ওপর মাথা রেখে শুয়ে পড়েছিলেন। মুহূর্তের ভেতর ভাইরাল হয়েছিল সেই ছবি। গোটা বিশ্ব কুর্নিশ জানিয়েছিল করোনাযুদ্ধে সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়তে থাকা ওই নার্সকে। এবং গোটা দুনিয়ার নার্সকে।
এবার এমনই এক ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে আমাদের দেশে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, একজন নার্স তাঁর সহকর্মীদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে রয়েছেন হাসপাতালের দরজার সামনে। আর অদূরে বাইকে বসে রয়েছে তাঁর ছোট্ট মেয়ে। খুব সম্ভবত বাইক চালাচ্ছেন মহিলার স্বামী।  মহিলার মাস্ক পরে রয়েছেন।  এদিকে বাবার সঙ্গে বাইকে বসে মায়ের কাছে যাওয়ার জন্য় অনবরত কেঁদে চলেছে সেই মেয়ে। বাবা বোঝাচ্ছেন যথাসম্ভব-- মা এখন আসতে পারবে না। অন্য়দিকে মায়ের চোখেও জল আর ধরে রাখা যাচ্ছে না। তারপর? বাইক ঘুরিয়ে মেয়েকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছে বাবা। মা-ও চোখের জল চোখেই রেখে ঢুকে পড়ছেন হাসপাতালের ভেতর। তাঁর সহকর্মীদেরও চোখ থেকে ঝরে পড়ছে অঝোর ধারায় জল।  

 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

করোনাভাইরাসের জেরে তৈরি হওয়া পরিস্থিতিতে চিকিৎসাপরিষেবা দিতে ব্যস্ত মা, তিনি পেশায় নার্স, কাজ ছেড়়ে বাড়ি যাওয়া হয়নি ১৫ দিন, কিন্তু ঘরে থাকা ছোট্ট কন্যাটি তা বোঝার মতো বয়স হয়নি, মা-কে দেখতে না পেয়ে সে বাবার মোটরবাইকে চেপে হাজির হাসপাতালে, কিন্তু সংক্রমণের ভয়ে মা কোলে টেনে নিতে পারেননি মেয়েকে, ফলে দূর থেকেই মেয়ে একদিকে হাপুস নয়নে কেঁদে ভাসাতে থাকে, অন্যদিকে স্থীর না থাকতে পেরে মাও কাঁদতে শুরু করেন, এক হৃদয় বিদারক ভিডিও যা সকলকে ভাবাবেগে ঠেলে দিয়েছে।

A post shared by Asianet News Bangla (@asianetnewsbangla) on Apr 9, 2020 at 3:16am PDT

মাত্র কয়েক মিনিটের এই ভিডিয়োটি যেন একেবারে নাড়া দিয়ে যাচ্ছে নেটিজেনদের। ভিডিয়োটির ওপর শুধু লেখা রয়েছে-- পনেরো দিন নার্স বাড়ি যেতে পারেননি। তাঁর অসহায় কান্নার বিনিময়ে আমরা সেবা পাচ্ছি।

আরও পড়ুনঃ আর্ন্টাটিকা সফর অধরা, বিলাশতরীর ৬০ শতাংশ যাত্রী করোনায় আক্রান্ত 

আরও পড়ুনঃ আর্ন্টাটিকা সফর অধরা, বিলাশতরীর ৬০ শতাংশ যাত্রী করোনায় আক্রান্ত

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাস দীর্ঘসময় বেঁচে থাকে ফেস মাস্ক আর প্ল্যাস্টিকে, তেমনই দাবি বিশেষজ্ঞদের