গরুর মল-মূত্রই শুধু নয়, গোয়ালের যাবতীয় আবর্জনা ফেলা হত চেম্বারে। সেই চেম্বার পরিষ্কার করতে নেমে বিষাক্ত গ্যাসে প্রাণ গেল দু'জনের। গুরুতর অসুস্থ হাসপাতালে ভর্তি পাঁচজন। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে হুগলির সিঙ্গুরে।

আরও পড়ুন: পুরুলিয়ায় ১০ বছরের বালকের মৃত্যু অনাহারে নয়, সাফ জানিয়ে প্রমাণ পেশ জেলাশাসকের

সিঙ্গুরের খাসেরভেরী গ্রামে থাকেন দীপেন ঘোষ। বাড়িতে চৌহদ্দিতেই গোয়ালঘর। প্রতিদিন নিয়ম করে গোয়ালঘরটি পরিষ্কার করা হয়। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, গোয়ালঘরে সিমেন্টের একটি চেম্বার তৈরি করেছেন দীপেন। যাবতীয় বর্জ্য ফেলা হয় সেই চেম্বারেই। সেই চেম্বারটি পরিষ্কার করতে গিয়ে ঘটেছে দুর্ঘটনা।

জানা গিয়েছে, শুক্রবার সকালে পাম্প চালিয়ে আর্বজনা পরিষ্কারের কাজ করছিলেন জয়ন্ত বাগ নামে এক যুবক। ঢাকনা খুলে যখন চেম্বারের ভিতরে নামে, তখন বিষাক্ত গ্যাসে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন জয়ন্ত। এরপর তাঁকে উদ্ধার করতে দীপেন নিজেই চেম্বারে নামেন। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হয়নি, তিনিও অসুস্থ হয়ে পড়েন। এভাবেই একে একে পাঁচজন নেমেছিলেন ওই চেম্বারে। অসুস্থ হয়ে পড়েন সকলেই। বাদ যায়নি দীপেন ঘোষের বারো বছরের ছেলেও। 

আরও পড়ুন: খেলার নেশাই কাড়ল প্রাণ, বাড়ির ছাদ থেকে পড়ে মৃত্যু অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকের

এদিকে এই ঘটনার কথা জানাজানি হতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। দীপেন ঘোষ ও তাঁর ছেলে-সহ পাঁচজনকে উদ্ধার করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁদের প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় সিঙ্গুর গ্রামীণ হাসপাতালে। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে দিয়েছে। যিনি প্রথম চেম্বারে নেমেছিলেন, সেই জয়ন্ত বাগ ও বাড়ির মালিক দীপেন ঘোষকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। দীপেনের ছেলে-সহ বাকি তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। শ্রীরামপুরের ওয়ালশ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তাঁদের।