করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় যখন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বাড়ি ভাড়া দিতে চাইছে না অনেকেই, তখন উল্টো ঘটনা ঘটল বীরভূমের সিউড়িতে। স্বেচ্ছায় স্বাস্থ্যকর্মীদের নিজের লজে থাকার জায়গা দিলেন কংগ্রেস জেলা সভাপতি। তাঁদের দু'বেলা খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন: 'সোশ্যাল ডিসট্যান্স' বজায় রাখতে অভিনব পদক্ষেপ, অনলাইন চেম্বার চালু মেয়রের

সিউড়ি শহরের জেলখানা মোড়ে একটি লজ চালান কংগ্রেসের বীরভূমের জেলা কংগ্রেস সভাপতি সঞ্জয় অধিকারী। লকডাউন ঘোষণার পর যথারীতি লজটি বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি। সমস্ত কর্মীদের পাঠিয়ে দিয়েছেন বাড়িতে। অবসর সময়ে কী আর করবেন! আর পাঁচজনের মতো টিভিতে নিয়মিত করোনা সংক্রান্ত খবর দেখতেন সঞ্জয়। করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে জীবন বাজি রেখে লড়াই করছেন তাঁরা, অথচ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরাই থাকার জায়গা পাচ্ছেন না! তাঁদের ভাড়া বাড়িতে থেকে উচ্ছেদ করে দিচ্ছেন অনেকেই। এই ঘটনার কথা টিভি দেখেই জানতে পারেন সিউড়ির ওই লজ মালিক। সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন, নিজের শহরে অন্তত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের থাকার ব্যবস্থা করবেন। যেমন ভাবা, তেমনি কাজ। নিজের ইচ্ছা কথা চিঠি লিখে জেলার মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিককে জানান সঞ্জয় অধিকারী। 

আরও পড়ুন: বিপদে গরিব মানুষদের সহায়, করোনা আতঙ্কের মাঝে মানবিকতার নজির কাশ্মীরি শালওয়ালার

জানা গিয়েছে, এখন তিনজন চিকিৎসক, একজন নার্স ও এক ড্রাগ কন্ট্রোল আধিকারিকের থাকার ব্যবস্থা হয়েছে সঞ্জয়বাবুর লজে। তাঁদের দু'বেলা সাধ্যমতো খাওয়ানোও হচ্ছে।  সঞ্জয় অধিকারী বলেন, 'দেশে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি চলছে। এখন সমস্ত মানুষের উচিত একে অপরের পাশে দাঁড়ানো। চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা নিজেদের জীবন বাজি রেখে মানুষের সেবা করছেন। আমি তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।' তাঁর সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সকলেই।