করোনা সতর্কতায় নজির গড়েছে তারা। শহরের ১৪টি পরিবারকে সংবর্ধনা দিল পুরসভা। চকোলেট, মাস্ক ও ফুল দিয়ে পরিবারের সদস্যদের ধন্যবাদ জানালেন কাউন্সিলর, স্বাস্থ্যকর্মী ও এলাকার বাসিন্দারা। লকডাউনের মাঝে অভিনব ঘটনা ঘটল উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে।

আরও পড়ুন: মেদিনীপুরের যুবকের স্ত্রীর শরীরেও মিলল সংক্রমণ, জেলায় আক্রান্ত বেড়ে তিন

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন চলছে রাজ্যে। কিন্তু সাধারণ মানুষ আর ঘরে থাকছেন কই! নানা অছিলায় এখনও রাস্তায় বেরোচ্ছেন অনেকেই। সকাল-সন্ধে আড্ডা বসছে পাড়ার মোড়ে, চায়ের দোকানে। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন পুলিশ ও প্রশাসনের আধিকারিকরা। এমনকী, ভিড় সরাতে পুলিশকর্মীদের উপর হামলা ঘটনাও ঘটেছে উত্তর দিনাজপুরের ইটাহারে। শুধু কি তাই! লকডাউনের মাঝেই দিল্লি থেকে রায়গঞ্জে চলে এসেছেন স্থানীয় সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। বৃহস্পতিবার দলের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে শহরে মাস্কও বিলি করেছেন তিনি। শনিবার নিয়মাফিক যখন তাঁর ফ্ল্যাটে  কোয়ারেন্টাইনের নোটিশ লাগাতে যান, তখন পুরকর্মীদের ফিরিয়ে দেন দেবশ্রী। বলেন, তিনি হোম আইসোলেশেনেই আছেন। ফ্ল্যাটের বাইরে নোটিস লাগালে নাকি অহেতুক আতঙ্ক ছড়াবে! এই যখন পরিস্থিতি, তখন করোনা সতর্কতায় সরকারি নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করল ১৪টি পরিবার। 

আরও পড়ুন: করোনার বিরুদ্ধে লড়াই, প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে মোমবাতি জ্বালালেন ভবঘুরেরাও

আরও পড়ুন: লকডাউনে অন্তঃসত্ত্বা মায়েদের ওষুধপত্র, ৫০০ পরিবারকে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন অজয় মিস্ত্রি

জানা গিয়েছে, লকডাউনের আগে বাইরে থেকে শহরে ফেরেন রায়গঞ্জের দেবীনগর এলাকার ২৫ জন বাসিন্দা। নিয়মাফিক পরিবার-সহ তাঁদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয় প্রশাসন। রবিবার হোম কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ শেষ হয় ১৪টি পরিবারের। এলাকায় গিয়ে পুরসভার তরফে ওই ১৪টি পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা জানালেন স্থানীয় কাউন্সিলর অসীম অধিকারী ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। কাউন্সিলর বলেন, নিজেদের জন্যই শুধু নয়, শহরের মানুষের নিরাপত্তার কথা চিন্তা স্বার্থে সরকারি নির্দেশ মেনে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তাঁরা। আগামী অন্যরা সরকারি নির্দেশ মেনে চলতে অনুপ্রাণিত হবেন।