করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমশই কালো হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আকাশে। ইতিমধ্যেই মৃতের সংখ্যা ৪০ হাজার ছাড়িয়েছে। যা এই মুহূর্ত বিশ্বের সবথেকে বেশি। আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লক্ষেরও বেশি। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায়া নিজের দেশের সঙ্গে তুলনা করছেন ভারতের। রবিবার হোয়াইট হাউসের সাংবাদিক সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন নমুনা পরীক্ষায় রেকর্ড তৈরি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই দেশে প্রচুর মাত্রায় নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। যা বিশ্বের বাকি ১০টি দেশের থেকেও বেশি। তিনি আরও বলেন ভারতের থেকেও বেশি নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথায় এখনও পর্যন্ত মাকিন যুক্তরাষ্ট্রে  ৪০ লক্ষেরও বেশি মানুষের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। যা বিশ্বে কোনও দেশে হয়নি। ইতিমধ্যেই যা রেকর্ড তৈরি করেছে। ফ্রান্স, ব্রিটেন, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রিয়া, সুইডেন, কানাডার থেকেও বেশি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। এত মানুষের নমুনা পরীক্ষা বিশ্বের আর কোনও দেশ করেনি বলেও দাবি করেছেন তিনি। 

আরও পড়ুনঃ করোনা মোকিবালায় সাফল্য কুড়িয়ে লকডাউন ইস্যুতে কেন্দ্রের সঙ্গে সংঘাতের পথে কেরল, হোটেল আর যান চলাচলে ...

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে গোটা বিশ্বের ঐক্যবদ্ধ লড়াই জয় আনবে, ম্যাটারহর্ন শৃঙ্গের প্রসঙ্গ এনে বার্তা ম...

রবিবারের সাংবাদিক বৈঠকে ডোনাল্ড ট্রাম্প লকডাউনের পক্ষেই সওয়াল করেন। তিনি বলেন, দেশবাসীর নিরাপত্তার স্বার্থেই লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মার্কিন প্রশাসন কোনও কিছুই বন্ধ করতে চায় না। পাশাপাশি মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ইতিলি স্পেনের মত দেশগুলি দেরিতে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় অনেক বেশি মাশুল দিতে হয়েছে। করোনাভাইরাসে মৃত্যুরা হার ৬০ হাজারের মধ্যে বেঁধে রাখা যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন মাপ্রিন প্রেসিডেন্ট। পাশাপাশি গভর্নরদের সঙ্গে দেশের প্রশাসন ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করছে বলেও দাবি করেছেন ট্রাম্প। 

ট্রাম্পের কথায় আগামী দিন আরও নিরাপদ হবে। তাঁর জন্য মার্কিনিরা অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। অনেক নিষ্ঠাভরে অপেক্ষা করছেন। সেই জন্য মার্কিন নাগরিকদের শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন তিনি। 

একটি সূত্রের খবর প্রতি দশ লক্ষ মানুষের মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নমুনা পরিক্ষার হার ১১,৬৬৬।  সেখানে স্পেন ও ইতালিতে নমুনা পরীক্ষার হার ১৯, ৮৯৬ ও ২২,৪৩৬।