২০১৯ সালের মিস ইংল্যান্ডের খেতাব মাথায় উঠেছিল ভারতীয় বংশোদ্ভূত ভাষা মুখার্জির। ইংল্যান্ডের হয়ে মিস ওয়ার্ড প্রতিযোগিতায় অংশও নিয়েছিলেন তিনি। ২৪ বছরের ভাষা মুখার্জির অন্য একটি পরিচয়ও রয়েছে। তিনি ইংল্যান্ডেরই  হাসপাতালের জুনিয়ার ডাক্তার। কিন্তু দেশের এই কঠিন সময় আর দূরে থাকতে পারেননি ভাষা। সুন্দরীর খেতাব দূরে সরিয়ে চিকিৎসকের সাদা পোষাকই বেছে নিয়েছেন তিনি। সব কিছু সরিয়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করাকেই আগ্রাধিকার দিয়েছেন তিনি। 

কলকাতায় জন্মগ্রহণ করলেও ভাষার বেড়ে ওঠা ইংল্যান্ডে। মিস ইংল্যান্ড হওয়ার পরই বেশ কয়েকটি সমাজসেবা মূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত হন ভাষা। সেই কারণেই তিনি এসেছিলেন ভারতে।  আফ্রিকা, তুরস্ক, পাকিস্তানসহ একাধিক দেশ থেকে তাঁকে আমন্ত্রণ জানান হয়েছিল। কিন্তু তাঁর সফরের সময়ই তিনি জানতে পারেন ইংল্যান্ডে ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। তাই আর দূরে থাকতে পারেননি ভাষা। দেশের কঠিন সময় দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতেই উদ্যোগী হন তিনি। 

 

চার সপ্তাহের ভারত সফর মাঝ পথেই শেষ করে ভাষা মুখার্জি তড়িঘড়ি ফিরে যান ইংল্যান্ডে। আফ্রিকাসহ বাকি দেশগুলির সফর স্থগিত রাখেন। ইংল্যান্ডের এক  হাসপাতালের জুনিয়ার ডাক্তার হিসেবে তিনি কর্মরত ছিল। সুন্দরীর খেতাব দূরে সরিয়ে আবারও কাজে ফেরেন তিনি। করোনভাইরাসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রথম সারিতে থেকেই লড়াই শুরু করেন ভাষা। তিনি জানিয়েছেন, চিকিৎসা শাস্ত্রে তাঁর একটি ডিগ্রি রয়েছে। নিজেকে চিকিৎসক হিসেবে তুলে ধরার এটাই সঠিক সময়। তিনি আরও বলেন মিস ইংল্যান্ড হিসেবে ব্রিটেনের বাসিন্দাদের সেবা করার এই সুযোগ হাতছাড়া করতেও রাজি নন তিনি।  

আরও পড়ুনঃ রাজা থেকে প্রজা রেহাই নেই কারো, করোনা আক্রান্ত বিশ্বের প্রথমসারির নেতা ও তাঁদের স্ত্রীরাও

আরও পড়ুনঃ রাজ্যগুলির লকডাউন বাড়ানোর আর্জি খতিয়ে দেখছে কেন্দ্র, জুন পর্যন্ত বন্ধ থাকতে পারে স্কুল

আরও পড়ুনঃ দেশে ৫ হাজারের গণ্ডি পেরোল করোনা রোগীর সংখ্যা, রেকর্ড গড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৭০০ বেশি

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রীতিমত প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে ইংল্যান্ডে। বর্তমানে সেদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৬৫৫। মৃত্যু হয়েছে ৭৫৮ জনের। বিলেতের প্রধানমন্ত্রীও করোনাভাইরাসে কাবু হয়ে হাসপাতালে রয়েছেন। করোনায় সংক্রমিত প্রিন্স চার্লসও। আক্রান্ত হয়েছে দেশেরক প্রথম সারির বেশ কয়েকজন নেতাও।