বিশ্বজুড়ে করোনা মাহামীর ত্রাস সৃষ্টি করেছে। আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লক্ষ থেকে ১৫ লক্ষের দিকে দ্রুত এগোচ্ছে। দুনিয়ার ২০০টিরও বেশি দেশ রয়েছে সংক্রমণের তালিকায়। পরিস্থিতি মোকাবিলায় লকডাউনের পথে এগিয়েছে অধিকাংশ দেশ। ফলে করোনা মহামারী নিয়ে এসেছে বিশ্বজুড়ে মন্দার পরিস্থিতিও। কাজ হারাচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। এই অতিমারীর মোকাবিলায় পৃথিবীর বিত্তশালী ব্যক্তিদের অনেকেই এগিয়ে দিয়েছেন সাহায্যের হাত। সেই দলে রয়েছেন সামাজিক মাধ্যম ও মাইক্রোব্লগিং সাইট ট্যুইটারের প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ডর্সিও। বিশ্ব জুড়ে তৈরি হওয়া করোনা সংকট মোকাবিলায় ১০০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সাহায্যের কথা ঘোষণা করেছেন ট্যুইটারের এই তরুণ সিইও। 

নিজের মোট সম্পত্তির ২৮ শতাংশ করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দান করার কথা ঘোষণা করেছেন জ্যাক ডর্সি। তাঁর তৈরি করা প্রতিষ্ঠান স্টার্ট স্মল ট্র্যাকিং ফাউন্ডেশনে এই অর্থ দান করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এই  প্রতিষ্ঠানটি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে তৈরি হওয়া সংকট মোকাবিলায় বিশ্বব্যাপী ত্রাণ সহায়তা পরিচালনা করছে।

দেশে ৫ হাজারের গণ্ডি পেরোল করোনা রোগীর সংখ্যা, রেকর্ড গড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৭০০ বেশি

এবার একেবারে আর্থিক সাহায্য বন্ধের হুঁশিয়ারি, চিন নিয়ে ফের 'হু'-কে ধমকালেন ট্রাম্প

করোনা আক্রান্ত বিশ্বকে পথ দেখাল উহান, লকডাউনের ৭৬ দিন পর একেবারে স্বাভাবিক জীবনে শহরবাসী

টুইট বার্তায় ডর্সি জানান, "করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় মোট সম্পদের ২৮ শতাংশ অর্থ সহায়তা দেওয়া হবে। এর পরিমাণ ১০০ কোটি মার্কিন ডলার। প্রাথমিকভাবে বিশ্বে এই  মহামারি মোকাবিলায় অর্থ ব্যয় হবে। সংকট কাটিয়ে ওঠার পর বিশ্বজুড়ে মেয়েদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষার সংশ্লিষ্ট খাতে নজর দেওয়া হবে।"

 

 

 ট্যুইটারের সহপ্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ডর্সি বর্তমানে সংস্থার প্রধান নির্বাহী বা সিইওর  দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া ডিজিটাল পেমেন্টের অ্যাপ 'স্কয়ার' এর প্রধান নির্বাহীও তিনি। তাঁর দান করা টাকার হিসাব-নিকাশও জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত রাখার ঘোষণা করেছেন জ্যাক। ট্যুইটারে ওই বার্তায় একটি গুগল  লিঙ্ক শেয়ার করেছেন তিনি। জ্যাক জানিয়েছেন এই তহবিলটি স্বচ্ছতার সঙ্গে পরিচালনা করা হবে।  লিঙ্কটিতে তহবিলের সব ধরণের তথ্য দেওয়া  থাকবে।

বিশ্বে ধনকুবের মধ্যে  জ্যাক ডর্সি এখনও পর্যন্ত করোনা তহবিলে সবচেয়ে অনুদান দিয়ে নজির গড়লেন। তবে ১০০ কোটি ডলার দানের পরেও বিশ্বের ধনকুবেরদের তালিকা থেকে তাঁকে সরানো যায়নি।