রাজা থেকে প্রজা কেউ নিস্তার পাচ্ছেন মারাত্মক ছোঁয়াচে করোনাভাইরাসের হাত থেকে। ডিসেম্বর থেকে বিশ্বব্যাপী তাণ্ডব শুরু করেছে করোনার জীবানু। তিনমাস ব্যাপী করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেছে ৩০ হাজার মানুষের। আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লক্ষ ছাড়িয়েছে। কিন্তু এই প্রথম করোনার জীবানু প্রাণ নিল রাজপরিবারের কোনও সদস্যের। স্পেনের রাজকন্যা মারিয়া টেরেসা সংক্রমিত হয়েছিলেন করোনার জীবানুতে। গত ২৬ মার্চ তাঁর মৃত্যু হয়েছ। ৮৬ বছরের রাজকন্যার মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ স্পেনের রাজপরিবার। আগামী শুক্রবার মাদ্রিদে মারিয়া টেরেসার শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। 

আরও পড়ুনঃ লকডাউনে ভয় পেয়ে রান্নার গ্যাস পেট্রোল ডিজেল মজুত করবেন না, আবেদন ইন্ডিয়ান ওয়েলের

আরও পড়ুনঃ যোগী সরকারের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অভিযোগ আপ বিধায়ক রাঘবের, পাল্টা এফআইআর দায়ের তাঁর নামে

আরও পড়ুনঃ রেহাই নেই দুধের শিশুরও, কর্নাটকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ১০ মাসের শিশুও

১৯৩৩ সালে প্যারিসে জন্মগ্রহণ করেন মারিয়া। প্রথম জীবনের পড়াশুনাও সেখানে। উচ্চ শিক্ষা মাদ্রিদের কমপ্লুটেন্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। সোজা সাপটা মতাদর্শ ও একাধিক সামাজিক কাজের জন্য তিনি স্থানীয়দের কাছে রেড প্রিন্সেস নামে পরিচিত ছিলেন। শেষ জীবনে তিনি নিকট আত্মীয়দের কাছেই থাকতেন। মারিয়ার আগে করোনায় সংক্রমিত হয়েছিলেন স্পেনের রাজ চতুর্থ ফিলিপ। 

আগেই শোনা গিয়েছিলেন ব্রিটেরেনর প্রিন্স চার্লস করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছিলেন।পরীক্ষা করা হলেও ব্রিটেনের রানীর কোনও সংক্রমণ ধরা পড়েনি। তাঁর শরীর সুস্থই রয়েছে বলে রাজপরিবারের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে।  ব্রিটেনের বেশ কয়েক মন্ত্রী ও আমলাও আক্রান্ত। কিন্তু করোনার সংক্রমণে রাজপরিবারের প্রথম সদস্য হিসেবে প্রাণ হারালেন স্পেনের রাজকন্যা মারিয়ায়। 

বর্তমানে করোনার সংক্রমণ ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছে স্পেনে। ৩৫০০-র বেশি মানুষ আক্রান্ত।এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৮৩২ জনের। দেশের স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রশাসন। এই অবস্থায় রাজকন্যার মৃত্যু আরও উদ্বেগ বাড়িয়েছে স্পেনের বাসিন্দাদের কাছে।