শনিবার বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে নামছে ভারত। পাকিস্তান ম্যাচের পর থেকে বেশ কিছু অদল বদল হয়ে গিয়েছে ভারতীয় শিবিরে। চুলের ছাঁটের পরিবর্তন হয়েছে কোহলি, ধোনি, হার্দিক ও চাহালের। শিখর ধাওয়ান ফিরে গিয়েছেন। আচমকা বিশ্বকাপ দলে ঢুকে পড়েছেন ঋষভ পন্থ। পাক ম্য়াচেই চোট পেয়ে আপাতত কয়েক ম্য়াচ মাঠের বাইরে চলে গিয়েছেন ভুবনেশ্বর কুমার। আবার বিজয় শঙ্করের পায়ে চোট লেগেছে অনুশীলনে।

এখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হল, বিজয় শঙ্কর কি খেলে পারবেন আফহগানিস্তান ম্য়াচে? নাকি তাঁর বলে বিশ্বকাপে অভিষেক ঘটবে ঋষভ পন্থের? বৃহস্পতিবার দলের সঙ্গে গা ঘামালেও পুরো দমে অনুশীলন করতে পারেননি শঙ্কর। খুঁড়িয়ে হাঁটছিলেন। ওই অবস্থাতেই একটু বল করে উঠে গিয়েছিলেন। শুক্রবার কিন্তু নিজে মুখেই জানালেন শনিবারের ম্য়াচের জন্য তৈরি তিনি।

শুক্রবার শঙ্কর অনুশীলন করতে না পারলেও পন্থকে আলাদা করে অনেকক্ষণ অনুশীলন করান স্বয়ং কোচ রবি শাস্ত্রী। শঙ্করের বদলে তিনিই খেলবেন বলে মনে করা হয়েছিল। তবে শুক্রবার কিন্তু শঙ্কর খেলবেন না পন্থ - এই নিয়ে ধোঁয়াশা রয়ে গেল।

এদিন ভারতীয় দল যখন নেট করছিল, তখন মূল মাঠে অনুশীলন করছিল আফগানিস্তান। আর তখনই আহত ভুবনেশ্বর কুমার ও বিজয় শঙ্করকে নিয়ে মাঠে আসেন ফিজিও প্যাট্রিক ফারহার্ট এবং মেন্টাল কন্ডিশনিং কোচ শঙ্কর বসু। আফগান স্পিনার রশিদ খান সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দলে বিজয় শঙ্করের সতীর্থ। তাঁকে দেখেই জড়িয়ে ধরেন বিজয়।

এরপর কয়েক পাক দৌড়ে গা গরম করে সোজা চলে যান নেটে। বেশ কিছুক্ষণ বোলিং করেন। ফিজিও প্যাট্রিক ফারহার্টকে দেখে বোঝা যায় শঙ্করের অবস্থা দেখে তিনি সন্তুষ্ট। এদিন ভারতীয় দলের পক্ষে বিজয় শঙ্করকে প্রাক ম্য়াচ সাংবাদিক সম্মেলনেও পাঠানো হয়।  

সেখানে বিজয় শঙ্কর দাবি করেন তিনি এখন অনেকটাই ভাল আছেন। তাঁর মতে বুমরার মতো ক্রিকেটারে বিরুদ্ধে খেলতে গেলে চোট লাগতেই পারে। একই সঙ্গে থ্রিডি ক্রিকেটার জানান, তিনি জানেন ক্রিকেটের তিন বিভাগেই তিনি উন্নতি করতে পারেন। আর তার চেষ্টা সব সময় করে যাচ্ছেন। পাকিস্তান ম্য়াচ তাঁর আত্মবিশ্বাস অনেক বাড়িযে দিয়েছে। তবে আফগানিস্তানকে কিন্তু একেবারেই ছোট করে দেখতে চান না। জানিয়েছেন নিজেদের আরও উন্নত করে তোলাটাই দলের অনুপ্রেরণা। তাই বিপক্ষে কে আছে সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়।

এরপরেও তিনি যে খেলবেনই এমনটা জোর দিয়ে বলা যাচ্ছে না। ইংল্যান্ডে ভারতীয় দল ম্য়াচের দিন পরিবেশ পরিস্থিতি দেখে দল সাজাচ্ছে। কাজেই পন্থের অভিষেক যে হবে না, তা আগে থেকেই বলা যাচ্ছে না। কিন্তু তারপরেও প্রাক ম্যাচ সাংবাদিক বৈঠকে শঙ্করকে পাঠানোয় শেষ পর্যন্ত বিজয়ী প্রথম একাদশই ভারত ধরে রাখবে বলে মনে করা হচ্ছে। শুধু ভুবনেশ্বর কুমারের জায়গায় শামির খেলাটা একরকম নিশ্চিতই বলা যায়।