ধোনির গ্লাভস বিতর্কে এক নয়া মোড় এনে দিলেন পাকিস্তানি লেখক তারেক ফাতাহ। তাঁর অভিযোগ আইসিসি পাকিস্তান দলের ক্ষেত্রে একরকম এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির ক্ষেত্রে আররকম আচরণ করছে। গত কয়েক দিনে ধোনির গ্লাভসে সেনা-চিহ্ন রাখা উচিত কি উচিত নয়, তাই নিয়ে নানা মহল থেকে বিভিন্ন রকম মতামত এসেছে। তবে সেসবের বাইরে গিয়ে একটি ভাবার মতো বিষয় তুলে ধরলেন এই কানাডা নিবাসী পক লেখক।

তাঁর মতে ধোনির ক্ষেত্রে আইসিসি বলছে তাদের নিয়ম মতো ক্রিকেট সরঞ্জামে সেনার প্রতীক বা বানিজ্য়িক বা ধর্মীয় কোনও বার্তা দেয় এমন কোনও চিহ্ন পরা যায় না। কিন্তু পাকিস্তান দলকে কিন্তু একেবারে মাঠের মধ্যেই নামাজ পড়ার অনুমতি দেওয়া হয়। সেই ক্ষেত্রে অসুবিধা না থাকলে কোন যুক্তিতে ধোনির ক্ষেত্রে আপত্তি তুলছে তারা সেই প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ভারতের বিশ্বকাপ ২০১৯-এর প্রথম ম্যাচে মহেন্দ্র সিং ধোনির উইকেটকিপিং গ্লাভসে আধাসামরিক বাহিনীর 'বলিদান' প্রতীক ছিল। আর তা টিভি ক্যামেরায় ধরার পর থেকেই গত কয়েকদিনে এই বিষয় নিয়ে প্রচুর বিতর্ক হয়েছে। ভারতীয় বোর্ডের পক্ষ থেকে আইসিসি-র কাছে অনুরোধ করা হয়েছি, যাতে ধোনিকে গ্লাভসে ওই প্রতীক ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হয়।

আইসিসি অবশ্য সেই আবেদন নামঞ্জুর করেছে। তাদের সাফ বক্তব্য ধোনি তাদের নিয়ম লঙ্ঘন করেছেন। ব্যাক্তিগত, সামরিক, ধর্মীয়, বানিজ্যিক বার্তা তাঁরা আইসিসি পরিচালিত টুর্নামেন্টে দিতে দেওয়া হবে না।

জানা গিয়েছে ধঝোনি নিজেও বিষয়টি নিয়ে বিতর্কের আঁচ টের পেয়ে অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে গ্লাভসে ওই প্রতীক ব্যবহার করতে চান না। তবে এদিনের ম্যাচে তিনি উউইকেটরক্ষকের ভূমিকায় নামলেই টিভি ক্যামেরা থেকে সকলের চোখ - তাঁর উইকেটকিপিং গ্লাভসের উপরেই থাকবে।