রবিবার লন্ডনের লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ডে বিশ্বকাপ ২০১৯-এর ফাইনাল খেলছে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। ভারতীয় দর্শকরা ভাঙা মন নিয়েই দেখছেন ফাইনাল ম্যাচ। তবে এটু পুরনো কথা মনে করে তাঁরা মনটা একটু চাঙ্গা করে নিতে পারেন। বিশ্বকাপ ফাইনালের একদিন আগেই অর্থাৎ শনিবার, ১৪ জুলাই ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম স্মরণীয় ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি জয়ের ১৭ বছর পূর্ণ হল।

আর এই স্মরণীয় দিনেই সেই ম্য়াচ জয়ের নায়ক মহম্মদ কাইফ জানালেন, তিনি যখন অপরাজিত ৮৭ রানের পরাক্রম দেখাচ্ছেন লর্ডসে তখন নাকি তাঁর বাড়ির লোকজন খেলা দেখছিলেনই না। তাঁরা সিনেমা হলে চলে গিয়েছিলেন শাহরুখ খান অভিনিত 'দেবদাস' দেখতে।

পর পর ৯টি ফাইনালে পরাজিত হওয়ার পর ন্য়াটওয়েস্ট ফাইনাল খেলতে এসেছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের ভারত। প্রথমে ব্যাট করে ট্রেসকোথিক ও নাসির হুসেনের শতরানের জোরে ৩২৫ রানের পাহাড় চাপিয়েছিল ইংল্যান্ড।  রান সৌরভ ও সেওয়াগের জুটি রান তাড়া করাটা খুব ভালভাবে শুরু করলেও তাঁরা আউট হতেই পর পর বেশ কয়েকটি উইকেট পড়ে গিয়েছিল ভারতের।

১০৬/১ থেকে দ্রুত সচিন, দ্রাবিড় মোঙ্গিয়ার পতনে ১৪৬/৫ হয়ে যায়। সেখান থেকেই মহম্মদ কাইফ ও যুবরাজ সিং-এর জুটি ভারতের আশা  
বাঁচিয়ে রেখেছিল। ১২১ রান যোগ করেছিলেন তাঁরা। ৬৩ বলে ৬৯ করে যুবরাজ আউট হলেও হরভজন সিংকে সঙ্গে নিয়ে কাইফ জিতিয়ে তবে ফেরেন প্যাভিলিয়নে। তিনিই হয়েছিলেন ম্য়ান অব দ্য ম্য়াচ। মনে করা হয় রান তাড়ার সময়ের চাপ সামলাতে ভারত শিখেছিল এই ম্যাচ থেকেই।   

অথচ কাইফের বাড়ির লোকজন নাকি সচিন আউট হওয়ার পরই ভারত হারছে ধরে নিয়েই টিভি বন্ধ করে সিনেমা দেখতে চলে গিয়েছিলেন। ভাত জেতার পর পাড়ার লোকজন হলে গিয়েই কাইফের বাবা-মা'কে ভারতের জেতার, কাইফের পরাক্রমের খবর দেন। তারপর অবশ্য মিষ্টি বিলিয়েছিলেন তাঁরা।