অবশেষে শেষ হল নিউজিল্যান্ড ইনিংস। মঙ্গলবার তাঁদের ইনিংসের ৪৬.১ ওভার হওয়ার পরই ঝেঁপে বৃষ্টি নেমেছিল। বুধবার সেখান থেকেই বাকি ২৩টি বল হল। তাতে আরও  ২৮ রান যোগ করলেন কিউই ব্য়াটাররা। পড়ল ৩টি উইকেট। সব মিলিয়ে প্রথম সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ড ভারতের সামনে   ২৩৯/8 রানে শেষ হল তাদের ইনিংস। অর্থাৎ ভারতকে ফাইনালে যেতে গেলে ৫০ ওভারে ২৪০ রান করতে হবে।

এদিন ২১১/৫ রান নিয়ে খেলা শুরু করেছিল নিউজিল্যান্ড। ক্রিজে আগেরদিন থেকে ৬৭ রানে অপরাজিত ছিলেন রস টেলর ও ৩ রানে ক্রিজে ছিলেন টম ল্যাথাম। তাঁদের দুজনই রবীন্দ্র জাদেজার দুরন্ত ফিল্ডিং-এর শিকার হলেন। প্রথমে টেলরকে ৭৪ রানের মাথায় এক অসাধারণ ডিরেক্ট থ্রোতে রান আউট করেন। আর তারপর ৪৮তম ওভারে ভুবির বলে ল্যাথামের তুলে মারা শট তিনি বাউন্ডারির সামনে অসামান্য দক্ষতায় তালুবন্দী করে নেন। ল্যাথাম ১০ এর বেশি করতে পারেননি।

আরও পড়ুন - ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতি কী, কীভাবেই বা গণনা হয় লক্ষ্যমাত্রা

আরও পড়ুন - বিশ্বকাপের মধ্যেই ফের নারীঘটিত বিতর্কে শামি! অযাচিত মেসেজ পাঠানোর অভিযোগ

আরও পড়ুন - ভারতীয় হোটেলে ঢুকতে বাধা পাক সমর্থককে! রাতারাতি হয়ে গেলেন বিরাটদের ভক্ত

ওই একই ওভারের শেষ বলে পতন ঘটে ম্যাচ হেনরির। এতগুলি উইকেট পড়ার কারণেই ষেভাবে রানের গতি বাড়িয়ে ইনিংস শেষ করতে চেয়েছিল ব্ল্যাকক্যাপসরা, সেই পরিকল্পনা সেভাবে খাটল না। শেষ ২৩টি বলে মাত্র একটি বাউন্ডারি এল। মারলেন মিচেল স্যান্টনার (৯*)।

তবে বুধবার কিন্তু এখনও পর্যন্ত মেঘ কেটে ওল্ড ট্রাফোর্ডে রোদ উঠেছে। আবহাওয়া এরকম থাকলে কিন্তু রান তাড়া করাটা অনেক সহজ হবে।

মঙ্গলবার খেলা শুরুই হয়েছিল বৃষ্টির হুমকি মাথায় নিয়েই। মেঘলা আবহাওয়ার সাহায্য পেয়ে ভারতের দুই জোরে বোলার ভুবনেশ্বর কুমার ও জসপ্রিত বুমরা দারুণ শুরু করেছিলেন। দারুণ নিয়ন্ত্রণের পরিচয় দেন বাকি বোলাররাও। তার সঙ্গে পিচে বল প্রথম থেকেই থমকে এসেছে। ফলে কখনই কিউই ব্য়াটাররা স্বচ্ছন্দ ছিলেন না। তবে তাদের ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন কেইন উইলিয়ামসন ও রস টেলর। উইলিয়ামসন ৬৭ রান করেছেন।

ভারতীয় বোলাররা প্রত্য়েকেই উইকেট নিয়েছেন। সবচেয়ে সফল ভুবনেশ্বর কুমার। তিনি ৩ উইকেট নিয়েছেন। ১টি করে উইকেট নিয়েছেন বুমরা, হার্দিক, জাদেজা ও চাহাল।