বুধবার, বিশ্বকাপ ২০১৯-এ আরও এক আকর্ষণীয় মোকাবিলা - পাকিস্তান বনাম নিউজিল্যান্ড। ভারত ছাড়া একমাত্র নিউজিল্যান্ডই এখনও পর্যন্ত টুর্নামেন্টের অপরাজিত দল। অন্যদিকে পাকিস্তান খারাপভাবে টুর্নামেন্ট শুরু করলেও এখনও সেমিফাইনালের দৌড়ে রয়েছে। তবে তাদের হাতে থাকা সবকটি ম্যাচই জিততে হবে।

ভারত ম্যাচে পরাজয়ের ধাক্কা সামলে এর আগের ম্যাচে ব্যাটে বলে দক্ষিণ আফ্রিকাকে টেক্কা দিয়েছে সরফরাজ আহমেদের দল। তারপর ফের নতুন করে সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে তারা। অন্য দিকে কিউইরা শেষ ম্যাচে ওয়েস্টইন্ডিজের বিরুদ্ধে হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে। অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসন দারুণ ফর্মে আছেন।

তবে বিশ্বকাপ ২০১৯-এ পাকিস্তানের এখনও পর্যন্ত দৌড়ের সঙ্গে বিশ্বকাপ ১৯৯২-এর বিশ্বকাপ অভিযানের আশ্চর্যজনক মিল রয়েছে। সেই সমাপতন বজায় থাকলে পাকিস্তানের এই ম্যাচ জেতা উচিত। নিউজিল্যান্ডের অপরাজিত দৌড়, নাকি পাকিস্তানের সমাপতন কার জয় হয় সেটাই দেখার।

আবহাওয়া ও পিচের খবর

এদিন ম্যাচ চলাকালীন বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই। তবে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকবে। এজবাস্টনের পিচে সাধারণত ব্য়াটসম্যান ও বোলারদের জন্য ভারসাম্য থাকে।  একদিকে পিচ থেকে স্পিনাররা স্পিন ও বাউন্স পান। আবার ব্যাটেও বল ভালভাবে আসে।

বিশ্বকাপ দ্বৈরথের পরিসংখ্যান

বিশ্বকাপে নিউজিল্য়ান্ড ও পাকিস্তান দুই দল মোট ৮টি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে। এরমধ্যে ৬টি ম্যাচ জিতেছে পাকিস্তান আর ২টি ম্য়াচ জিতেছে নিউজিল্যান্ড।

নিউজিল্যান্ড দলের খবর

এখনও পর্যন্ত অপরাজিত থাকলেও বিশ্বকাপে মিডল অর্ডারে টম ল্যাথাম রানরেট বাড়াতে পারছেন না। এটা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে নিউজিল্যান্ডের জন্য। এদিন আরেক উইকেটরক্ষক টম ব্লান্ডেলকে সুযোগ দেওয়া হতে পারে।  এছাড়া ওপেনে কলিন মুনরোর জায়গায় আসতে পারেন হেনরি নিকোলস।

পাকিস্তান

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে পাক দলে হ্।যারিস সোহেল ও শাহিন আফ্রিদির অন্তর্ভুক্তি দলে ভারসাম্য এনেছে। এদিন তাদের দল অপরিবর্তিত থাকবে বলেই জানা গিয়েছে।

দুই দলের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ


নিউজিল্যান্ড

মার্টিন গাপ্টিল, কলিন মুনরো / হেনরি নিকোলস, কেইন উইলিয়ামসন, রস টেলর, টম ব্লান্ডেল / টম ল্যাথাম, জেমস নিশাম, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, মিচেল স্যান্টনার, ট্রেন্ট বোল্ট, ম্যাট হেনরি, লকি ফার্গুসন।

পাকিস্তান

ইমাম উল হক, ফখর জামান, বাবর আজম, মহম্মদ হাফিজ, সরফরাজ আহমেদ, হ্যারিস সোহেল, ইমাদ ওয়াসিম, ওয়াহাব রিয়াজ, শাদাব খান, শাহিন আফ্রিদি, মহম্মদ আমির।