অনেকদিন অপেক্ষা করেছেন ভারতীয় সমর্থকরা। অবশেষে বুধবার সাউদাম্পটনের রোজ বোল স্টেডিয়ামে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে নামছেন বিরাট কোহলিরা। কিন্তু বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ভারত - এই ম্যাচের যতটা আকর্ষণ থাকার কথা, তা কিন্তু নেই। প্রথম দুই ম্যাচে ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ফাফ ডু প্লেসিস-দের খারাপ পারফরম্যান্স-এর ফলে অনেকটাই রঙ হারিয়েছে এই মোকাবিলা।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকা দলে কিন্তু তারকা ক্রিকেটারের অভাব নেই। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে হারটা নিশ্চিতভাবে তাঁরা মেনে নিতে পারছেন না। ফলে সম্মান রক্ষার্থেই তাঁরা ভারতের বিরিুদ্ধে জ্বলে উঠতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে ভারতীয় তারকারাও বিশ্বকাপের শুরু থেকেই নিজেদের জাত চেনাতে মুখিয়ে থাকবেন তাঁরা।

মূল ম্যাচের পাশাপাশি এই তারকাদের ব্যক্তিগত প্রতিদ্বন্দ্বিতাও চলবে বুধবার। আর তাতেই আপাত ফিকে মোকাবিলা ফের উজ্জ্বল হয়ে উঠতে পারে। আর এই ছোট্ট ছোট্ট লড়াইগুলোই কিন্তু ম্যাচের ভবিষ্যত নির্ধারণ করে দিতে পারে।

রোহিত শর্মা বনাম রাবাডা

এই ম্যাচে খেলবেন বিশ্বের ১ নম্বর বোলার কাগিসো রাবাডা ও বিশ্বের ১ নম্বর ব্য়াটসম্যান বিরাট কোহলি। ইতিমধ্যেই বিরাটের বিরুদ্ধে হুঙ্কার দিয়ে রেখেছেন রাবাডা। কিন্তু, ইনিংসের শুরুতে আসবেন রোহিত শর্মা। আর শুরুতে বল করেন রাবাডাও। কাজেই ইনিংসের শুরুতে এই দুজনের মুখোমুখি হওয়াটা আবশ্যক। এই লড়াইতে রোহিত জিতে গেলে কিন্তু ভারতের ইনিংস-এর একটা দারুণ ভিত আশা করা যায়। আর রাবাডা জিতলে কিন্তু ভারতকে সমস্যায় পড়তে হবে।

বিরাট বনাম তাহির

আইপিএল থেকেই দুরন্ত ফর্মে আছেন প্রোটিয়া লেগস্পিনার ইমরান তাহির। বিশ্বকাপেও ইতিমধ্যেই তাঁর ৪টি উইকেট শিকার করা হয়ে গিয়েছে। তাহির সাধারণত প্রথম পরিবর্তিত বোলার হিসেবে আসেন। তাই তিন নম্বরে নামা বিরাট কোহলির মুখোমুখি হবেন। অন্যদিকে ভারত অধিনায়কের ব্য়াটিং-এ প্রায় কোনও খুঁতই নেই। একমাত্র ফাঁক যেটা ধরা পড়েছে তা হল লেগ স্পিন। এই বছরের আইপিএল-এও বেশ কয়েকবার লেগস্পিনারের হাতে পরাস্ত হয়েছেন বিরাট। কাজেই তাহিরকে তিনি কীভাবে সামলাবেন, তার উপর অনেককিছুই নির্ভর করছে।

ডিকক বনাম শামি

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্য়াটিং-এর বড় ভরসা তাদের বাঁহাতি ওপেনার কুইন্টন ডিকক। ইনিংসের শুরুতে তাঁকে সামলাতে হবে বিশ্বের দুই নম্বর বোলার যশপ্রীত বুমরাকে। তবে ভারতের ২০১৮ সালের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে মহম্মদ শামি ও কুইন্টন ডি ককের মধ্যে একটা ঠান্ডা লডা়ই জমে উঠেছিল। গোটা সিরিজে বেশ কয়েকবার ডি কক-কে আউট করেছেন শামি। শুধু তাই নয়, প্রতি ম্যাচেই শামির সঙ্গে ডি ককের ব্যাট-বলের লড়াই উপভোগ করেছেন দর্শকরা। আইপিএল-এও সেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা জারি ছিল। এবার বিশ্বকাপে আরও একবার তা দেখা যেতে পারে।

ডুপ্লেসিস বনাম কুলদীপ

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং-এর দ্বিতীয় ভরসা অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। বাংলাদেশ ম্যাচে রান পেলেও, খারাপ সময়ে উইকেট ছুড়ে দেওয়ায় তাঁর তীব্র সমালোচনা হয়। ভারত ম্যাচে কিন্তু সমালোচকদের জবাব দিতে মুখিয়ে তাকবেন তিনি। তবে মাঝের ওভারে তাঁকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত থাকবেন ভারতের চায়নাম্যান বোলার কুলদীপ যাদব। আইপিএল-এ ফর্ম হারিয়েছিলেন কুলদীপ। অনুশীলন ম্য়াচে কিন্তু উইকেট পেয়ে তিনি ফের স্বমহিমায় ফিরে এসেছেন।