বিশ্বকাপ ২০১৯-এ দক্ষিণ আফ্রিকার দুঃস্বপ্ন শেষই হচ্ছে না। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর বাংলাদেশের বিরুদ্ধেও ২১ রানে পরাজিত হতে হয়েছে। শুধু তাই নয়, চোট পেয়েছিলেন জোরে বোলার লুঙ্গি এলগিদিও। কিন্তু সবচেয়ে বড় দুঃসংবাদটা এল ভারত ম্য়াচের ঠিক আগের দিনই। ডেল স্টেইন এই বিশ্বকাপেই আর খেলতে পারবেন না।

প্রথম দুই ম্যাচে খেলেননি তিনি। কিন্তু ভারত ম্যাচকেই পাখির চোখ করেছিলেন তিনি। ঠিক তার আগেই জানা গেল, তাঁর চোটের কোনও উন্নতি হয়নি। আর সেই কারণে টুর্নামেন্ট থেকেই তিনি ছিটকে গেলেন। তাঁর বদলে প্রোটিয়া দলে নেওয়া হল বিউরান হেন্ড্রিক্স-কে। তাঁকে ভারত ম্যাচের আগেই বিলেতে আনার চেষ্টা চলছে।

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চোট পাওয়ায় এমনিতেই ভারতের বিরুদ্ধে খেলতে পারবেন না এনগিদি। এরপর স্টেইনও ছিটকে গেলেন। ফলে রাবাডার সঙ্গে পেস জুটি হিসেবে খেলার মতো প্রকৃত কোনও জোরে বোলারই আপাতত নেই প্রোটিয়া শিবিরে। সেই কারণেই বাঁহাতি পেসার বিউরান হেন্ড্রিক্স-কে যত দ্রুত ইংল্যান্ডে আনার চেষ্টা চলছে।

কখন বিউরান এসে পৌঁছবেন ইংল্যান্ডে, ভারত ম্যাচের আগে যদি পৌঁছতেও পারেন, তিনি কতটা ফিট থাকবেন সেটাই দেখার। জানা যাচ্ছে বিউরান শেষ পর্যন্ত না খেলতে পারলে অলরাউন্ডার প্রিটোরিয়াসকেই জোরে বোলার হিসেবে খেলানো হবে। এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকার হাতে আর কোনও বিকল্পও নেই।  

প্রায় দুই বছর কাঁধের আঘাতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলতে পারেননি স্টেইন। তারপর আইপিএল খেলতে এসেছিলেন। কিন্তু ১টি ম্যাচ খেলার পরই ফের কাঁধে চোট পান। আর সেই চোটই তাঁকে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দিল। এরপর আর একদিনের ক্রিকেট তিনি কেলন কি না সেদিকে নজর থাকবে ক্রিকেট বিশ্বের।

এইবারের দক্ষিণ আফ্রিকা দলের ব্য়াটিং বেশ দুর্বল। কিন্তু রাবাডা, এনগিদি, স্টেইন, তাহির-কে নিয়ে বোলিং আক্রমণ খুবই শক্তিশালী ছিল। কিন্তু চোট-আঘাতেই সেই বোলিং বিভাগও ঝুড়ঝুড়ে হয়ে গেল।

প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের জোরে বোলার জোফ্রা আর্চারের শর্টবলে মাথায় আঘাত পেযেছিলেন ব্যাটসম্যান হাশিম আমলাও। বাংলাদেশ ম্য়াচে খেসলতে পারেননি তিনি। তবে ভারতের বিরুদ্ধে তিনি খেলবেন বলেই এখনও অবধি খবর।