বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই শতরান করলেন রোহিত শর্মা। মূলত তাঁর ১৪৪ বলে করা ১২২ রানের শতরানের দৌলতেই কঠিন উইকেটেও দক্ষিণ আফ্রিকার দেওয়া ২২৮ রানের লক্ষ্যমাত্রায় সহজেই পৌঁছে গেল ভারত। প্রথম ইনিংসে চাহাল ৪টি উইকেট নিলেও ব্যাটিং-এর জন্য যথেষ্ট কঠিন, দুই রকম বাউন্সের উইকেটে দুর্দান্ত ইনিংসের পর তাঁকে ছাড়া আর কাউকেই ম্যাচের সেরা বেছে নেওয়ার উপায় ছিল না।

হিটম্যানের ব্যতিক্রমী শতরান

এদিন কিন্তু একটি সম্পূর্ণচরিত্র বিরোধী ইনিংস খেললেন রোহিত শর্মা। একেবারেই 'হিটম্যান'-সূলভ নয়। সাধারণত প্রথমকে একটু দেখে খেললেও, কিছু সময় পর থেকেই তাঁর দুর্দান্ত স্ট্রোক প্লে শুরু হয়ে যায়। বলে বলে ছয় মারেন। কিন্তু এদিন শুরুতে শিখর ধাওয়ান ও বিরাট কোহলি আউট হয়ে যাওয়ার পর দারুণ দায়িত্ব নিয়ে ইনিংস এগিয়ে নিয়ে গেলেন তিনি। সাধারণত যেসব শট খেলতে ভালবাসেন, সবই প্রায় ছেঁটে ফেলে অনেক বেশি দায়িত্ব নিয়ে খেললেন। বস্তুত গোটা ওডিআই কেরিয়ারে ১২৮ বলে করা এই শতরানই তাঁর সবচেয়ে মন্থর গতির বলে জানাচ্ছেন রেকর্ড বই।  

বিশ্বকাপে দ্বিতীয় শতরান

এই নিয়ে বিশ্বকাপের আসরে রোহিত দুটি শতরান কতরলেন ২০১৫ সালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে শতরান করেছিলেন। চলতি আসরে প্রথম ম্যাচেই শতরান করলেন তিনি। ফলে এইবার তিনি আরও বেশ কয়েকটি শতরান করবেন বলে আশা করা যায়।   

টপকে গেলেন দাদাকে
 
এটি রোহিত শর্মার ২৩ তম শতরান। এর ফলে একদিনের ক্রিকেটে শতরানের সংখ্যায় তিনি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মোট ২২টি শতরানকে টপকে গেলেন। এখন একদিনের ক্রিকেটে রোহিতের থেকে বেশি শতরান রইল মাত্র ৮ জন ক্রিকেটারের। আর ভারতীয়দের মধ্যে তাঁর চেয়ে বেশি শতরান আছে কেবল সচিন তেন্ডুলকর ও বিরাট কোহলির।

ওডিআইতে সবতেচেয়ে বেশি শতরান করা  ভারতীয়রা -

সচিন তেন্ডুলকর ৪৯
বিরাট কোহলি ৪১
রোহিত শর্মা ২৩
সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ২২
শিখর ধাওয়ান ১৬
বীরেন্দ্র সেওয়াগ ১৫

কাছাকাছি এলেন অধিনায়কের

বিরাট কোহলির রেকর্ডগুলি দেখলে অবিশ্বাস্য মনে হতে পারে। বিশেষ করে রান তাড়া করার ক্ষেত্রে তাঁর ক্ষমতা অতুলনীয়। যার জন্য তাঁকে চেজমাস্টার বলা হয়। রোহিত কিন্তু খুব পিছিয়ে থাকলেন না।

রান তাড়ার সময়ে শতরান করার নিরিখে রোহিত এখন আছেন চার নম্বরে -

বিরাট কোহলি ২৫
সচিন তেন্ডুলকর ১৭
ক্রিস গেইল ১২
দিলশান / রোহিত শর্মা ১১

রান তাড়া করে অপরাজিত শতরান করার নিরিখে আছেন দুই নম্বরে
বিরাট কোহলি ১১
রোহিত শর্মা ৯
সচিন তেন্ডুলকর ৮
সইদ আনোয়ার ৭

ভারতের থেকে অন্যরকম, জুটিই মূল মন্ত্র

ম্যাচের পর রোহিত জানান, এই উইকেটে খেলাটা ভারতে খেলার থেকে অন্যরকম অভিজ্ঞতা। উইকেটে গোটা ম্যাচেই বোলাররা সুবিধা পেয়েছেন। তাই নিদের স্বাভাবিক খেলা তিনি খেলতে পারেননি। প্রথমদিকে বেশ কয়েক ওভার ব্যাট করে বলের গতি প্রকৃতি বুঝতে হয়েছে। আর বিরাট তাড়াতাড়ি ফিরে যাওয়ায় তাঁর দায়িত্ব ছিল কাজটা শেষ করে আসার। আর তার জন্য জুটি গড়ার দিকেই বেশি জোর দিয়েছিলেন তিনি ও সঙ্গী ব্যাটাররা।