করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ডাকা জনমতা কার্ফুকে আগেই সমর্থন জনিয়েছিলেন ভারতীয় দলের ক্রিকেটার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। সোশাল মিডিয়ায় জনতা কার্ফুর সমর্থনে পোস্টও করেছিলেন অশ্বিন। দেশবাসীকে অনুরোধ করেছিলেন মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ থকে বাঁচতে ঘরে থাকার জন্য। দিনভর কার্ফুর চলার পর এবার আগামি দিনেও দেশবাসীকে এই কার্ফুকে চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান করলেন অশ্বিন। সকলের সুস্থ ও সচেতন থাকার জন্য এই আবেগদন ইন্ডিয়ান ফিঙ্গার স্পিনারের।

আরও পড়ুনঃকঠিন পরিস্থিতিতে দেশবাসীকে সচেতনতার বার্তা ইরফান পাঠানের

আরও পড়ুনঃকালোবাজারিরা দেশের আসল করোনা ভাইরাস', সোশাল মিডিয়ায় সরব রুবেল হোসেন

এই মুহূর্তে দেশ তথা পৃথিবী জুড়ে আতঙ্কের অপর নাম নোভেল করোনা ভাইরাস। বিশ্ব মহামারির আকার নেওয়া এই কোভিড ১৯ ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে রবিবার সকাল থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আহ্বানে জনতা কার্ফু পলান করা হল।  সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা ১৪ ঘন্টা অবধি দেশের মানুষকে ঘরে থাকার যে আহ্বান জানিয়েছিলেন নমো। দিনভর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশকে অক্ষরে অক্ষরে পালন করল দেশবাাসী। নজির গড়ে মোদীর জনতা কার্ফু’র সমথর্নে দেশের বিভিন্ন ব্যস্ত শহরের ছবিটা রবিবার সকাল থেকেই ভিন্ন। কলকাতা থেকে দিল্লি, চেন্নাই থেকে মুম্বই অনান্য রবিবারের সকালের থেকেও ছবিটা সম্পূর্ণ আলাদা। রাস্তাঘাট শুনশান। কোনও কোনও রাস্তা পুলিশ টহল দিচ্ছে। এর আগে দেশ সাক্ষী থেকে অগণিত ভারত বনর্ধের। এমনকি বিভিন্ন সময়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত সাক্ষী থেকে কার্ফুর। কিন্তু করোনা মোকাবিলায় এদিন প্রধানমন্ত্রীর জনতা কার্ফুতে কার্যত স্তব্ধ দেশের মেট্রো শহরগুলি।

আরও পড়ুনঃপ্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার অতুল বেদাদের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ

রবি চন্দ্রন অশ্বিন জানিয়েছেন এখানেই শেষ নয়। মারন ভাইরাস করোনাকে রুখতে আগামি দিনে এইভাবে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে গোটা দেশকে। ‘জনতা কার্ফু’ যেন জারি থাকে আগামী দিনগুলোতেও, সেই আবেদন করেছেন ভারতীয় স্পিনার। টুইটারে অশ্বিন লিখেছেন, ‘দারুণভাবে শুরু হয়েছে জনতা কার্ফু। স্কুলের যেমন থাকে তেমনই রাস্তাঘাটে সম্পূর্ণ পিন ড্রপ সাইলেন্স। আশা করি আজকের পরেও এমন সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকবে।’ দিনের শেষে দেশের এই সময় জরুরি পরিষেবাকারীদের সম্মানও জানান অশ্বিন। আসলে ‘জনতা কার্ফু’ সারা দেশে কেমন সাড়া ফেলে, তার উপর ভিত্তি করেই করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করবে দেশ, এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। গোটা দেশকে একসঙ্গে করোনা বিরুদ্ধে লড়াই করার আহ্বানও করেছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। 

 

 

;