দেশ জুড়ে চিন বিরোধী আবহের জেরে অবশেষে চলতি মরসুমের আইপিএলের টাইটেল স্পনসর থেকে সরে দাঁড়িয়েছেভিভো। চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থার সঙ্গে এই বছরের জন্য সবরকম চুক্তি শেষ করেছে বিসিসিআইও। ইতিমধ্যেই খোঁজ শুরু হয়েছে আইপিএলের নতুন টাইটেল স্পনসরের। ইতিমধ্যেই আইপিএল চেয়ারম্যান ব্রিজেশ প্যাটেল জানিয়ে দিয়েছেন ১৮ অগাস্ট ঘোষমা করা হবে প্রতিযোগিতার নতুন টাইটেল স্পনসরের নাম। তার আগেই অবশ্য আইপিএলের দুটি কো স্পনসর ঠিক করে ফেলল বিসিসিআই।

আরও পড়ুনঃআইলিগের দলের তালিকায় ইস্টবেঙ্গলের নাম, তাহলে কি আইএসএলের স্বপ্ন শেষ লাল-হলুদের

আইপিএলের টাইটেল স্পনসর হিসেবে ভিভো প্রতিবছর ৪৪০ কোটি টাকা করে দিত। কিন্তু ভিভো সেই অর্থ দিতে রাজি হয়েছিল দীর্ঘ মেয়াদি চুক্তি থাকার জন্য। কিন্তু মাত্র একবছরের জন্য এত পরিমাণ টাকা দিতে রাজি হচ্ছে না কোনও কোম্পানিই। তাই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড নতুন টাইটেল স্পনসরের কাছ থেকে মোটামুটি ৩০০ কোটি টাকার চুক্তির টার্গেট ধরেই এগোচ্ছে। কিন্তু বাকি টাকার জন্য কো স্পনসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিসিআই সেই কারণে আইপিএলের নতুন দুটি কো-স্পনসর নেওয়া হয়। দুই কো স্পনসর হল-ক্রেড আর আন অ্যাকাডেমি। ‌জানা গিয়েছে, ক্রেড এবং আন অ্যাকাডেমি দুই সংস্থাই বোর্ডকে বছরে ৬০ কোটি টাকা করে দেবে।  

ধোনির করোনা রিপোর্ট পেতেই হতবাক সাক্ষী,তবে কি যোগ দিচ্ছেন আইপিএলের অনুশীলনে

আরও পড়ুনঃবার্সেলোনায় একসঙ্গে খেলতে পারেন মেসি-রোনাল্ডো, ক্রীড়া সাংবাদিকের দাবি ঘিরে চাঞ্চল্য ফুটবল দুনিয়ায়

তবে বোর্ড সূত্রে এও জানা গিয়েছে শুধু কো-স্পনসর নয়, আন অ্যাকাডেমি নাকি আইপিএল–এর মূল স্পনসর হতেও একইরকম আগ্রহী। বোর্ডে খবর নিয়ে জানা গেল, আন অ্যাকাডেমি প্রবলভাবে চাইছে আইপিএলের প্রধান স্পনসর হওয়ার জন্য। আর সেজন্য তারা ইতিমধ্য বিড পেপারও তুলে নিয়েছে। এছাড়াও আইপিএলের টাইটেল স্পনসর হওয়ার দৌড়ে রয়েছে রিলায়েন্স জিও, স্টার স্পোর্টস, অ্যামাজন, টাটা, ড্রিম ইলেভেন, আদানি, বাইজু'সও। এছাড়াও রয়েছে  রামদেবের পতঞ্জলি আয়ূর্বেদও। ফলে আইপিএলের মূল স্পনসরের জানার জন্য অপেক্ষা ১৮ তারিখের।