এ যেন টি২০ সিরিজের রিপিট টেলিকাস্ট। প্রথমে ব্যাটিং করে চেন্নাইতে বড় রান করতে পারেনি ভারত। ম্যাচটাও হারতে হয়েছিল। বিশাখাপত্তনমে সেই হিসেবটা যেন সুদে আসলে মিটিয়ে নিল ভারতীয় দল। দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচে টস হেরে আবার প্রথমে ব্যাটিং করতে যায় ভারতীয় দল। কিন্তু এদিন ব্যাকফুটে থাকার পালা ছিল ক্যারিবিয়ান বোলারদের। হলেও তাই। ২২৭ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপের পর প্রথম উইকেট হারাল ভারত। ১০৪ বলে ১০২ রানের ইনিংস খেলে ফিরলেন লোকেশ রাহুল।  হিটম্যান রোহিত যে ভাবে ব্যাটিং করছিল তাতে মনে হচ্ছিল তিনি বুধবার আরও একটা ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকাবেন। কিন্তু ১৩৮ বলে ১৫৯ রানের ইনিংস খেলে ফিরলেন তিনি। রোহিতের এই ইনিংস রোহিতকে চলতি বছরে একদিনের ক্রিকেটে সব থেকে বেশি রানে পৌছে দিল। রোহিত ২০১৯ সালে এখনও পর্যন্ত ১৪২৭ রান করেছেন তিনি। আরও একটি ম্যাচ আছে হিটম্যানের কাছে। 

 

 

আরও পড়ুন - বৃহস্পতিবার শহরে আইপিএল নিলাম, ভাগ্য নির্ধারণ ৩৩২ ক্রিকেটারের

দুই ওপেনার শতরান করার পর বিরাট এদিন খাতাই খুলতে পারেননি। মনে হয়েছিল রোহিত-রাহুল ফিরে যাওয়ার পর কিছুটা চাপে পরবে ভারত। কিন্তু দুই তরুণ ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ফ্রন্টফুটে আসার সুযোগটাই দিলেন না। ৩২ বলে ৫৩ রানের ইনিংস খেললেন শ্রেয়স। মারলেন তিনটি চার। চারটি ছয়। অন্যদিকে ১৬ বলে ৩৯ রান করলেন ঋষভ। তিনি মারলেন তিনটি চার। চারটি ছয়। প্রথমে ব্যাটিং করে বড় রান করার প্রয়োজন ছিল ভারতের। কিন্তু সেটা যে চারশো রানের কাছে পৌছে যাবে সেটা বোঝা যায়নি। ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮৭ স্কোর বোর্ডে তুলে নিল টিম ইন্ডিয়া। বুধবারই সিরিজ জিতে নিতে ৩৮৮ রান করতে হবে পোলার্ডের দলকে। 

আরও পড়ুন - মধ্যরাতে মহারণ, মরসুমের প্রথম এল ক্লাসিকো নিয়ে উন্মাদনা ফুটবল বিশ্বে

চেন্নাইতে প্রথমে ব্যাটিং করে ৫০ ওভারে ২৮৭ রান করেছিল ভারত। আর দ্বিতীয় ম্যাচে সেই ৫০ ওভারেই আরও একশো রান যোগ করল তারা। ৩৮৮ রান তাড়া করে এখনকার দিনে জেতা অসম্ভব নয়। কিন্তু কাজটা খুব একটা সহজও নয়। ম্যাচে দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে শিশির একটা বড় ফ্যাক্টর হয়ে উঠবে। কিন্তু ভারত এই অবস্থা থেকে ম্যাচ হেরে যাবে এমনটা মানতে রাজি নন কেউই। তবে অনেকেই বলছেন ক্রিকেট অনিশ্চয়াতার খেলা। কিছু বলা যায় না। এখন দেখার বিশাখাপত্তনমে সব থেকে বেশি রান তাড়া করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জয় তুলে নিতে পারে কি না। 

আরও পড়ুন - বিরাট কোহলি ক্রিকেটের ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো, বলছেন ব্রায়ান লারা