পাকিস্তান বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে অংশ নিয়েছিলেন ব্রিটিশ তারকা অল রাউন্ডার বেন স্টোকস। কিন্তু তারপরই সিরিজের বাকি ম্য়াচ তেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছিলেন তিনি। জানা গিয়েছিল ব্যক্তিগত কাজে নিজের দেশ নিউজিল্যান্ডে যাবেন। পারিবারিক কোনও কাজ রয়েছে তার। ইসিবির পক্ষ থেকেও গোপীনয়তা বজায় রেখে জানানো হয়নি আসল তথ্য। তবে আশঙ্কা করা হয়েছিল পারাবিরাক কারও অসুস্থতার কারণেই সিরিজের মাঝ পথে নিউজিল্যান্ডের বাড়িতে যাচ্ছেন স্টোকস। অবশেষে সেই জল্পনাতেই সিলমোহর দেয় স্টোকসের পরিবারই। বেন স্টোকসের পিতা জেড জানিয়ে দেন, তিনি মস্তিষ্কের ক্যান্সারে ভুগছেন।

আরও পড়ুনঃউদাসীনতার ফলেই কি সিএসকে শিবিরে করোনা ভাইরাসের থাবা, একাধিক ভাইরাল ছবি ঘিরে উঠছে প্রশ্ন

জানা গিয়েছে বেন স্টোকসে খেলা দেখতে যখন দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়েছিলেন জেড স্টোকস। তখনই তিনি অসুস্থতা বোধ করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ইংল্যান্ডের বক্সিং ডে টেস্টের ঠিক আগে জোহানেসবার্গের হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সেখানে প্রাথমিক তিকিৎসা করার পর নিউজিল্যান্ডে ফেরেন জেড। দেশে ফিরে ফের অসুস্থ হয়ে পড়ে তিনি। তারপরই সব পরীক্ষার পর জানা যায় যে, জেড স্টোকসের মাথায় দুটি টিউমার হয়েছে।  চিকিৎসকরা জানান ব্রেন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন বেন স্টোকসের বাবা। দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হয়ে ভেঙে পড়েননি জেড স্টোকস। সংবাদ মাধ্যমে ব্রেন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার কথা নিজেই জানিয়েছেন প্রাক্তন রাগবি প্লেয়ার। 

আরও পড়ুনঃঅনুশীলন শুরু করল আরসিবি, নেটে দুরন্ত ব্যাটিং বিরাট কোহলির

আরও পড়ুনঃউড়ানে সচিন, সৌরভ না ধোনি কে বেশি নাক ডেকে ঘুমোতেন, দেখুন সেই সব মজার ছবি

৬৪ বছর বয়সী জেড নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘মাথায় দু’টি টিউমার থাকা সত্ত্বেও আমি কীভাবে ঘুরে বেড়াই, সেটাই আবাক করে ডাক্তারদের।কীভাবে এটা হল, তা বলা মুশকিল। তবে সারা জীবেন মাথায় বেশ কয়েকবার ধাক্কা লেগেছে। সম্ভবত তা থেকেই এটার উৎপত্তি। তবে এটা এককথায় ব্রেন ক্যান্সার।' জেড স্টোকসের ঘোষণার পর ইসিবির পক্ষ থেকেও খবরের সত্যতী স্বীকার করা হয়েছে। বর্তমানে বেন স্টোকস রয়েছেন পরিবারের সঙ্গে। তিনিই বাবার দেখাশোনা করার পাশাপাশি চিকিৎসা সংক্রান্ত বিশয়টি দেখছেন। ব্রিটিশ অলরাউন্ডারের বাবার দ্রুত সুস্থতা কামনা করেছেন বেন স্টোকসের ভক্ত, অনুগামী থেকে গোটা ক্রিকেট বিশ্ব।