দেশ জুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ। ক্রমাগত বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। করোনা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রথম থেকেই এগিয়ে এসছিলেন দেশের প্রাক্তন থেকে বর্তমান ক্রিকেটের। এবার মানুষের প্রাণ বাঁচালেন আরও এক ক্রিকেটার। তবে করোনা বাইরাস থেকে নয়। ভয়ঙ্কর আগুন থেকে। সেই ক্রিকেটারের নাম আকিব শেখ। মুম্বইয়ের পশ্চিম কল্যাণ এলাকার একটি বহুতলের বাসিন্দা। সেই আবাসনেরই এক নয়, দুই নয়, ৪০ বাসিন্দাকে আগুনের হাত থেকে বাঁচিয়ে রাতারাতি শিরোনামে চলে এসেছেন মুম্বাইয়ের এই ক্রিকেটার।

আরও পড়ুনঃকরোনা ভাইরাসের জের,এবার পিছিয়ে গেল দেশের ফুটবল মরসুম

মুম্বইয়ের পশ্চিম কল্যাণ এলাকার  চার্ম স্টার নামক আটতলা বিল্ডিংটিতে হঠাতই আগুন লেগে যায়। বহুতলের ৬ তলায় আগুনের প্রকোপ ছিল সবথেকে বেশি। কাকতালীয়ভাবে পরিবারের সঙ্গে ছ'তলাতেই থাকতেন আকিব। চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিল্ডিংয়ে। ভয়ঙ্কর বিপদের মুখে পড়েও কর্তব্যজ্ঞান হারাননি তিনি। বন্ধুদের সহায়তায় একে একে বিল্ডিংয়ের সমস্ত মানুষকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যান আকিব। আবাসনের প্রতিটি বাসিন্দাকে উদ্ধার করেন আকিব ও তাঁর দুই বন্ধু আদনান খান ও দানিশ খান। বিল্ডিংটির ৬ তলাতেই আটকে পড়েছিলেন ৪০ জন বাসিন্দা।  পরে একটি কাঠের মই নিয়ে এসে সকলকে একে একে পাশের আবাসনের ছাদে নিয়ে যান। চার্ম স্টারস বিল্ডিং থেকে মোট ৪০ জনকে উদ্ধার করে সুন্দ্রা প্লাজা আবাসনে নিয়ে যান আকিব ও তাঁর বন্ধুরা।

আরও পড়ুনঃক্রিকেটে সব ম্যাচই 'ফিক্সড',সৎভাবে হয়না কোনও খেলা, বিস্ফোরক দাবি বুকি সঞ্জীব চাওলার

আগুনে আটকে পড়েছিল আকিবের পরিবারও। এক সময় ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছিল গোটা ফ্লোর। তখন রুমের ভিতর আটকে ছিলেন আকিবের মা ও ঠাকুমা। আকিব স্বীকার করে নেন যে, একসময় ভয় পেয়েছিলেন ধোঁয়ায় কারও দম বন্ধ না হয়ে যায়। শেষমেশ কারও কোনও বিপদ না ঘটায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন তিনি। যদিও সকলেই নিরাপদে বেরিয়ে আসতে পারার জন্য আকিবকেই ধন্যবাদ জানাচ্ছেন। ২৯ বছর বয়সী আকিব বলছিলেন,'লোড শেডিং ছিল সারাদিন। সন্ধ্যের দিকে কারেন্ট এলে আমি মোবাইল চার্জ দিতে যাই। তখন দেখি মা চিত্কার করছে। আগুনের ধোয়ায় চারিদিকে কিছু দেখা যাচ্ছিল না। তার পর বন্ধুদের ফোন করি। ওরা প্রায় সঙ্গে সঙ্গে চলে আসে। আমরা সবাইকে উদ্ধার করতে পেরেছি। বড় কোনও বিপদ ঘটেনি। আমাম মা, ঠাকুরমা, স্ত্রী সেই সময় ঘরেই ছিল। ধোয়ায় দমবন্ধ হয়ে যাওয়ার ভয় হচ্ছিল। তবে এখন সকলেই সুস্থ রয়েছেন।'

আরও পড়ুনঃফোর্বসের বার্ষিক উপার্জনের নিরিখে ঘোষিত তালিকায় ৬৬ নম্বরে কোহলি, শীর্ষে ফেডেক্স

ক্রিকেট খেলেছেন বটে! তবে ততটা নাম করতে পারেননি।  মাত্র ২০ বছর বয়সি তিনি মুম্বইয়ের রনজি দলে জায়গায় পেয়েছিলেন। কিন্তু আহমরি পারফরম্যান্স করতে পারেননি। ২৫ ওভার বল করে একটিও উইকেট তুলতে পারেননি এই পেসার। তার পর আর তাঁর প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট খেলা হয়নি। হাজার চেষ্টা করেছেন ফিরে আসার। কিন্তু ধীরে ধীরে হারিয়ে যেতে থাকেন বিস্মৃতির আড়ালে। কিন্তু এবার যেটা করলেন তাতে তিনি সত্যিকারের নায়ক হয়ে গেলেন। গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়ল আকিব শেখের নাম।