বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে তৈরি হওয়া অচলাবস্থা কিছুতেই কাটছে না। মোটামুটিভাবে মার্চ মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই করোনা ভাইরাসের কারণে ফুটবল সহ অন্যান্য ক্রীড়া বন্ধ রয়েছে গোটা পৃথিবী জুড়ে। এই পরিস্থিতিতে স্পেনে আগামী সোমবার থেকে ফুটবলার একান্তে ট্রেনিং সেন্টার গিয়ে ট্রেনিং শুরুর অনুমতি নেওয়া হয়েছে। এতদিন অবধি ফুটবলারদের নিজের নিজের বাড়িতে থেকেই ট্রেনিং করতে বলা হয়েছিল।

আরও পড়ুনঃডাচ এবং ফ্রেঞ্চ লিগ বাতিল হওয়া সত্ত্বেও সেশন পুনরায় শুরুর ভাবনা ইউয়েফার

বর্তমানে লা লিগায় খেলা ফুটবলাররা আগামী ৪ মে থেকে মাঠে গিয়ে অনুশীলন করতে পারবেন। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো স্যাঞ্চেজ এমনটাই ঘোষণা করেছেন। আস্তে আস্তে মে মাস থেকে স্পেনে লকডাউন শিথিল করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী স্যাঞ্চেজ নিজে বলেছেন যে ৪ মে থেকে পেশাদার ফুটবলার যারা আছেন তারা, অবশ্যই আলাদা আলাদা ভাবে প্রথম দফায় অনুশীলন শুরু করে দিতে পারেন। তবে অবশ্যই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ সংক্রান্ত সতর্কতা মেনে তবেই মাঠে নেমে প্রস্তুতি সারা যাবে।

আরও পড়ুনঃকরোনার জের,বাংলার ঘরোয়া ক্রিকেট মরসুম বাতিল করতে পারে সিএবি

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পরবর্তী সময়ে ফুটবল মাঠে বল গড়ালেও খেলোয়াড়দের জীবন নিয়ে কোনওপ্রকার ঝুঁকি নেওয়া হবে না বলে পেদ্রো স্যাঞ্চেজ জানিয়েছেন। ফুটবলারদের এইমুহূর্তে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে অনুশীলন করা বাধ্যতামূলক বলে তিনি ঘোষণা করেছেন। এছাড়া দেশে করোনার রেড জোন অঞ্চলগুলিতে কোনও প্রস্তুতি হবে না বলে জানানো হয়েছে। বিশেষ কিছু অঞ্চলে সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে অনুশীলন করা যাবে বলে ঘোষণা করা হয়েছে। 

আরও পড়ুনঃঋষি কাপুরের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ ক্রীড়াজগৎ,শোক প্রকাশ সচিন,সৌরভ,কোহলিদের

যেভাবেই হোক তাই করোনার মাঝেও লিগ শুরু করতে মরিয়া লা লিগা প্রেসিডেন্ট হাভিয়ের তেবাস। প্রয়োজনে খেলোয়াড়দের হাতে লেখা নিশ্চয়তা পত্র দেওয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। এতদিন লিগ বন্ধ থাকায় বিশাল বড় আর্থিক ক্ষতি দেখা গিয়েছে লা লিগা কর্তৃপক্ষের। তেবেস জানিয়েছেন যখন খেলার অনুমতি পাওয়া যাবে তখন যদি ক্লাবগুলো না খেলে, তা হবে খুবই লজ্জার ব্যাপার এবং সেক্ষেত্রে লা লিগার নিয়ম অনুযায়ী সেই দলের তিন পয়েন্ট কাটা যাবে। আগামী ৪ঠা মে থেকে অনুশীলনে ফিরতে চায় লা লিগার দলগুলো। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো অনুমতি না মেলায় কোনও নিশ্চিত পদক্ষেপ নিতে পারছে না লিগা কর্তৃপক্ষ।