চেন্নাই-এ এক অসামান্য নজিরের সামনে ভারতীয় ক্রিকেট দল। ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে পঞ্চম দিনের খেলা। ভারতের পক্ষে আর অশ্বিন প্রায় একার হাতেই খেলার মোড় ঘুরিয়েছেন ভারতের পক্ষে। প্রথম ইনিংসে যে ইংল্যান্ড দল ৫৭৮ রান করেছিল। দ্বিতীয় ইনিংসে সেই ইংল্যান্ড দলকে স্পিনের বিষাক্ত ছোবলে মাত্র ১৭৮ রানে বেঁধে দেন অশ্বিন। তিনি নিজে ৬১ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট দখল করেন। অশ্বিনকে যোগ্য সহায়তা দেন নাদিম। তিনি ও ২ উইকেট নেন। ইশান্ত শর্মা ও জসপ্রীত বুমরাও ১টি করে উইকেট সংগ্রহ করেন। চতুর্থ দিনে শেষবেলায় ব্যাট করতে নেমে ভারত দ্রুত রোহিত শর্মার উইকেট হারায়। রোহিত ১২ রান সংগ্রহ করে প্যাভিলিয়নে ফিরে গিয়েছিলেন। এরপর চতুর্থদিনের শেষে ক্রিজে অপরাজিত থাকেন শুভমন গিল এবং চেতেশ্বর পূজারা। পঞ্চম দিনের শুরুতেই জয়ের জন্য বিশাল রানের টার্গেট তাড়া করতে গিল ও পূজারার ব্যাটের দিকে তাকিয়ে ছিল ভারতীয় ক্রিকেট দল। কিন্তু, খেলা শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন পূজারা। 

আরও পড়ুন- পঞ্চম দিনে ম্যাচ বাঁচানোই লক্ষ্য ভারতের, ইংল্যান্ডর জয়ের জন্য দরকার ৯ উইকেট

পঞ্চম দিনে খেলা শুরুর কিছুক্ষণ আগে মাঠের মধ্যে এক অভিনব দৃশ্য দেখা যায়। সেখানে দেখা যায় ভারতীয় ক্রিকেট দলের হেডস্যার রবি শাস্ত্রী বিরাটদের কিছু বোঝাচ্ছেন। পরে জানা যায়, ছেলেদের তিনি জয়ের জন্য ঝাঁপাতে পেপ-টকে উদ্বুদ্ধ করছিলেন। বিরাটও তাঁর সহযোদ্ধাদের উদ্বুদ্ধ করেন। ঠিক মতো হিসাব কষে খেললে জয় যে অধরা হবে না তা দলের সামনে তুলে ধরেন শাস্ত্রী ও কোহলি। 

 

 

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজে এক অসামান্য পারফরম্যান্স উপহার দিয়ে দেশে ফিরেছে ভারতীয় ক্রিকেট দল। যদি, ওই সিরিজে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দলের সঙ্গে থাককে পারেননি কোহলি। সন্তানের জন্মের জন্য তিনি দেশে ফিরে এসেছিলেন স্ত্রী অনুষ্কার পাশে থাকতে। অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরে আসা ভারতীয় ক্রিকেট দল ব্যাক টু ব্যাক টেস্ট সিরিজে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি। চেন্নাই-এর এই টেস্টে প্রথম থেকেই আধিপত্য দেখিয়ে এসেছে ইংল্যান্ড। বলতে গেলে অশ্বিন-ই সেই ব্যক্তি যিনি একার হাতে খেলার মোড় ভারতের দিকে এনেছেন। কিন্তু, এই মুহূর্তে ভারতের সামনে জয়ের চ্যালেঞ্জটা বেশ কড়া, একদিকে পঞ্চম দিনে হাতে ৯ উইকেট নিয়ে জয়ের রান তাড়া করাটা মানসিক দিক থেকে খুব একটা সহজ নয়। সন্দেহ ভারত জয় পেলে এক ঐতিহাসিক মুহূর্ত তৈরি হবে চেন্নাইয়ের চিদম্বরম স্টেডিয়ামে। 

চতুর্থ দিনের ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংস ১৭৮ রানে শেষ হয়ে যায়। দ্বিতীয় ইনিংসেও দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান অধিনায়ক জো রুটের। তিনি ৪০ রান করেন। এছাড়া ইংল্যান্ড ব্যাটিং লাইন আপ-এর টেল এন্ডারদের মধ্যে পোপে, বাটলার এবং বিস যথাক্রমে ২৮, ২৪ এবং ২৫ রান না করলে ইংল্যান্ডের স্কোর আরও নেমে যেতে পারত।