সিডনি তৃতীয় টেস্টের শেষ দিনে ঐতিহাসিকভাবে ম্যাচ ড্র করেছিল ভারত। অস্ট্রেলিয়ার মুখের সামনে থেকে জয়ের গ্রাস ছিনিয়ে ম্যাচ বাঁচিয়েছিলেন হনুমা বিহারী ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন। হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ব্যাট করেছিলেন হনুমা।  গ্রেড-২ হ্যামস্ট্রিং চোটের মত মাকাত্মক ব্যাথা নিয়ে নাছোড় লড়াই চালিয়ে দেশের সম্মান বাঁচিয়েছিলেন হনুমা। অপরদিকে একইরকমভাবে পিঠে ব্যথা নিয়ে ব্য়াট করে গিয়েছিলেন অশ্বিন। দুই ভারতীয় তারকার প্রশংসায় পঞ্চমুখ ক্রিকেট বিশ্ব।

কিন্তু বিরুপ মনোভাব প্রকাশ করেছিলেন বিজেপির গায়ক সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। হনুমা বিহারীকে 'ক্রিকেটের খুনি ' বলে আখ্যা দিয়েছিলেন বিজেপি নেতা। বাবুল ট্যুইটে লিখেছিলেন, ১০৯ বল খেলে সাত রান করেছেন! এটা খুব খারাপ বললেও কম বলা হবে। ঐতিহাসিক জয়ের ক্ষেত্রে ভারতের সম্ভাবনা শুধুমাত্র শেষ করে দেননি বিহারী, বরং তিনি ক্রিকেটকেও হত্যা করেছেন। সম্ভাবনা খুব কম হলেও জয়ের জন্য চেষ্টা না করার কাজ অপরাধের।’ সঙ্গে যোগ করেছিলেন, ‘আমি ক্রিকেটের বিষয়ে কিছু জানি না।’ ম্য়াচ শেষে আরেকটি ট্যুইটে বাবুল লেখেন,'দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়েই যদি বাজে বলগুলিকে বাউন্ডারিতে পাঠানোর উদ্যম দেখাতেন হনুমা, তাহলে হয়ত এই ঐতিহাসিক জয় ছিনিয়ে নিতে পারত ভারত। বিশেষত পন্ত যা করেছেন, তা কেউ ভাবতেও পারেননি। আমি আবারও বলছি যে হনুমা শুধুমাত্র বাজে বল মারতে পারতেন। কারণ তিনি ততক্ষণে সেট হয়ে গিয়েছিলেন।'

 

 

বিজেপি সাংসদ সনমালোচনা করলেও, হনুমা বিহারীকে কুর্নিশ জানিয়েছে ক্রিকেট বিশ্ব। দেশবাসীও তাকে বীরের সম্মান দিয়েছেন। কিন্তু এবার বাবুলকে পাল্টা ট্যুইটে উত্তর দিলেন ভারতীয় তারকা ব্যাটসম্যান। তবে তার ইনিংস সম্পর্কে কিছু না না লিখে শুধুমাত্র বাবুল সুপ্রিয়কে তারল ভুল ধরিয়ে দেন হুনমা। টুইটারে বিহারীর নামের পদবি ইংরেজি অক্ষরে ‘বি’ লিখেছিলেন এই সাংসদ। আদতে বিহারী পদবিতে ‘ভি’ ব্যবহার করেন।

 

 

হনুমার এই স্মার্ট উত্তর ভাইরাল হয়ে যায় নেট দুনিয়ায়। বাবুলকে খোঁচাও দিয়েছেন অনেকেই। নেটিজেনরা প্রশংসা করেছেন হনুমার হাস্যরসবোধেরও। অনেকেই বলছেন, বাবলুকে বানান শেখালেন 'খুনি ক্রিকেটার'।