আজ আইপিএলের সুপার সানডে।  আর রবিবাসরীয় আইপিএলের মেগা ম্যাচে মুখোমুখি হতে চলেছে এবারের আইপিএলের অন্যতম দুই শক্তিশালী দল দিল্লি ক্যাপিটালস ও কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। দুই দলের দুই তরুণ অধিনায়ক দিল্লির শ্রেয়স আইয়র ও পঞ্জাবের কেএল রাহুলের দ্বৈরথ দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছে ক্রিকেট বিশ্ব। শুধু দুই অধিনায়কেরই লড়াই নয়, আজকের ম্যাচে লড়াই হতে চলেছে দুই চাণক্য অর্থাৎ দুই দলের কোচের মগজাস্ত্রেরও। কারণ একদিকে রিকি পন্টিং ও অপরদিকে অনিল কুম্বলে। মাঠের বাইরের এই দ্বৈরথও উপভোগ করার অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন ক্রিকেট প্রেমিরা। পাশাপাশি দিল্লি ও পঞ্জাব দুটি দলই এখনও পর্যন্ত একবারও আইপিএল জিততে পারেনি। ফলে এই বছর ট্রফি খরা কাটাতে মরিয়া দুই দলের কোচ, অধিনায়ক থেকে শুরু অন্যান্য প্লেয়াররা।

আরও পড়ুনঃব্যাট হাতে দুরন্ত রায়ডু-ডুপ্লেসি, আইপিএলের প্রথম ম্য়াচে মুম্বইকে ৫ উইকেটে হারাল ধোনির সিএসকে

দলগত শক্তির বিচারে দুই দলই কিন্তু সমান শক্তিধর। বিশেষ করে পঞ্জাব দলে টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ধামাকা ব্যাটিংয়ের সবরকম মশলা মজুত রয়েছে। ওপেনিংয়ে ক্রিস গেইল ও কেএল রাহুলের জুটি বিপক্ষের বোলিং লাইনআপে ত্রাস সৃষ্টির জন্য যথেষ্ট। এরপরও রয়েছে নিকোলাস পূরাণ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের মতো বিধ্বংসী ব্যাটসম্যানরা। এছাড়া সরফরাজ খান, মনদ্বীপ সিং, কে গৌতমের মতো প্লেয়াররা নজর কাড়তে পারে।  অপরদিকে দিল্লি ক্যাপিটালসের ব্যাটিং লাইনআপও খুবই শক্তিশালি। ভারতীয় দলের একাধিক ব্যাটসম্যান রয়েছে দলে। পৃথ্বী শ, শিখর ধওয়ন, শ্রেয়স আইয়ার, ঋষভ পন্থের মতো তারকারা একাই ম্যাচ বার করার ক্ষমতা রাখে। এছাড়াও রয়েছে ক্যারিবিয়ান হিটার শেমরন হেটমায়ার, অজি তারকা মার্কাস স্টয়নিস ও অ্যালেক্স ক্যারিকেও ফিনিশার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন রিকি পন্টিং। অজিঙ্কে রাহানেও দলে রয়েছে কিন্তু প্রথম ১১-তে তার জায়গা হয় কিনা সেটাই দেখার।

আরও পড়ুনঃকরোনা যোদ্ধাদের সম্মান জানাতে অভিনব উদ্যোগ, পুরো আইপিএলে কৃতজ্ঞতা জানাবে আরসিবি

দুই দলের বোলিং লাইনআপও যথেষ্ট শক্তিশালি। কিংস ইলেভেন পেস বোলিং অ্যাটাকের নেতৃত্ব দেবেন সম্ভবত মহম্মদ শামি ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিখ্যাত শেল্ডন কোট্রেল। যদিও স্পিন বিভাগে অভিজ্ঞতা একটু কম রয়েছে কেএল রাহুলের দলের। আফগানিস্তানের মুজিব-উর-রহমান, ভারতীয় কৃষ্ণাপ্পা গৌতম, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে খেলা রবি বিষ্ণোই রয়েছে দলে। তবে পঞ্জাব দলের কোচের নাম যেহেতু অনিল কুম্বলে। তাই এই স্পিনাররদের উপরই ভরসা রাখছে টিম ম্যানেজমেন্ট। অপরদিকে দিল্লি ক্যাপিটালসের পেস বোলিং লাইনআপে রয়েছে ইশান্ত শর্মা ও কাগিসো রাবাডার রাবাদার অভিজ্ঞতা। অপরদিকে দিল্লির স্পিন বোলিং লাইনআপ অন্যতম সেরা। অভিজ্ঞতা ও বৈচিত্র দুই রয়েছে স্পিন অ্যাটাকে। আর অশ্বিন, অমিত মিশ্র, অক্ষর প্যাটেল ও নেপালের তরুণ স্পিনার সন্দীপ লামিচানে। ফলে দিল্লি স্পিন বিভাগ বিপক্ষের ব্যাটিং লাইনআপে ত্রাস সৃষ্টি করতেই পারে। ফলে দলগত শক্তির বিচারে দিল্লি কিছুটা এগিয়ে থাকলেও, সুপার সানডেতে সুপার ফাইট দেখার অপেক্ষায় ক্রিকেট বিশ্ব।

আরও পড়ুনঃডিজে ব্রাভোর বান্ধবীর লুকস ও হটনেসে অবাক হবেন আপনিও, আর না দেখলেই করবেন মিস