৫৪ বলে ১৩৭ রানের বিধ্বংসী ইনিংস। ১১টি ছয়, ৯টি চারে সাজানো। শতরান পূরণ করেন মাত্র ৩৭ বলে।  সৈয়দ মুস্তাক আলি টি টোয়েন্টি ট্রফিতে ঘরোয়া ক্রিকেটের ইতিহাসে অন্যতম সেরা ইনিংস খেললেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন। যেই ইনিংস সৌজন্য রেকর্ড বুকেও নাম তুলে ফেললেন আজহার। না এই আজহারউদ্দীন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজাহারউদ্দীন নয়। এই আজাহারউদ্দিন কেরালার তরুণ ক্রিকেটার। যার বিধ্বংসী ইনিংসের সৌজন্যে শক্তিশালী মুম্বইকে হেলায় হারাল কেরালা।

সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির ম্য়াচে প্রথমে ব্যাট করে প্রথমে ব্যাট করে ১৯৬ রান করে মুম্বই। জবাবে ব্যাট করতে মাত্র ১৫.৬ ওভার অর্থাৎ ২৫ বল বাকি থাকতেই জয়ের লক্ষ্য পৌছে যায় কেরালার দল। সৌজন্যে মহম্মদ আজাহারউদ্দিনের ৫৪ বলে ১৩৭ রানের ঝোড়ো ইনিংস। এদিন ম্য়াচে মুম্বইয়ের শক্তিশালী বোলিং লাইনআপকে নিয়ে কার্যত ছেলে খেলা করেন আজহার। ম্যাচের সেরাও নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। এই ইনিংসের আগে ঘরোয়া ক্রিকেটে যার একটিও অর্ধশতরান ছিল না, সেই আজহার রাতারাতি একটি ইনিংস কেল চলে আসলেন লাইমলাইটে। একাধিক রেকর্ডও গড়েন আজাহার। কেরালার ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেচার হিসেবে টি২০ ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করলেন আজাহর, একইসঙ্গে সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে দ্বিতীয় দ্রুততম শতরান ও ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে যুগ্মভাবে তৃতীয় দ্রুততম শতরানকারী হলেন আজহার।

 

 

কেরালার তরুণ ক্রিকেটার মহম্মদ আজহারউদ্দীন ১৯৪ সালে থালানগারাতে জন্ম গ্রহণ করেন। তার দাদা ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজাহরউদ্দীনের বড় ভক্ত ছিলেন। সেই কারণেই প্রিয় তারকার নামে তার ছোট ভাইয়ের নামকরন করা হয়। ছোট বেলা থেকেই ক্রিকেটের প্রতি প্রেম ছিল কেরালার আজহারের। ঘরোয়া ক্রিকেটা ২০১৫-১৬ সালে অভিষেক হয় তার। তবে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে আজহারের বিধ্বংসী ইনিংস তার কেরিয়ারকে অন্য মাত্রায় পৌছে দিল।