আধুনিক ক্রিকেটের রান মেশিন বলা হয় ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। টেস্ট, ওডিআই থেকে টি২০- তিন ফর্ম্যাটেই ৫০ উপরে গড়ে রান করে গোটা ক্রিকেট বিশ্বকে অবাক করেছেন ভিকে। ভেঙেছেন একের পর এক রেকর্ড। আগামি দিনে আরও ভাঙবেন। কিন্তু জানলে অবাক হবেন, এই বিরাট কোহলি নাকি এক সময় ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়তে চলেছিলেন। সেই সময় বিরাটকে বাঁচিয়েছিলেন তৎকালীন ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। এমনই চাঞ্চল্যকর দাবি করলেন, প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার ও বর্তমান ধারাভাষ্যকর সঞ্জয় মঞ্জরেকর।

২০১১ সালে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হয় বিরাট কোহলির। সেই সময় ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তিন ম্য়াচে মাত্র ৭৬ রান করেছিলেন তরুণ বিরাট। তারপরই অস্ট্রেলিয়া সফরেও ধোনির বদান্যতায় দলে সুযোগে পেলেও প্রথম দুই টেস্টে চুড়ান্তভাবে ব্যর্থ হয়েছিলেন বিরাট কোহলি। ওয়ান ডে ক্রিকেটের রান মেশিন বিরাট কোহলি টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম দিকে ধারাবাহিকতা দেখাতে পারছিলেন না। ২০১১ সালের অস্ট্রেলিয়া সফরের সিডনি ও মেলবোর্ন টেস্টে বিরাট কেরছিলেন যথাক্রমে ১১, ০, ২৩ এবং ৯ রান। ফলে সেই সময় কোহলিকে টেস্ট দল থেকে বাদ দেওয়া প্রায় নিশ্চিৎ হয়ে গিয়েছিল বলে জানিয়েছেন সঞ্জয় মঞ্জরেকর।

সেই সময় মহেন্দ্র সিং ধোনিই নিজে উদ্যোগে নিয়ে বিরাটকে আগামি দুই টেস্টে জায়গা করে দেন দলে। পার্থ টেস্টে ব্যাট হাতে দুরন্ত খেলে কোহলি করেন ৪৪ এবং ৭৫ রান। এরপর মেলবোর্নে ফাইনাল টেস্টে পান তাঁর টেস্ট কেরিয়ারের প্রথম শতরান। সেই সময় ধোনি না থাকলও, বিরাটের দল থেকে বাদ পড়া অবধারিত ছিল বলে মনে করেন প্রাক্তন তারকা। তবে এবার একটি ম্য়াচ খেলে কোহলির দেশে ফেরার কথা থাকলেও, ওই একটি পিঙ্ক বল টেস্টেই কোহলির জ্বলে ওঠার বিষয়ে বিশ্বাসী সঞ্জয় মঞ্জরেকর।