করোনা ভাইরাস ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে ক্রীড়া বিশ্বে। কোভিড ১৯-এর জেরে বিশ্ব জুড়ে বন্ধ সমস্ত ধরনের স্পোর্টিং ইভেন্ট। ফুটবলের পাশাপাশি যার ব্যাপক প্রভাব পড়েছে ক্রিকেট। ইতিমধ্যেই টানা লকডাউনের জেরে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড। যার কারণে ইতিমধ্যেই ৮০ শতাংশ কর্মীকে ছুটিতে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কর্তারা। করোনা পর্ব শেষ হওয়ার পর দেউলিয়া হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেবে অনেক ক্রিকেট বোর্ডের। এমনটাই মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা।  ফলে ইতিমধ্যেই আশঙ্কার কালো মেঘে গ্রাস সেই দেশের কর্মকর্তাদের।

আরও পড়ুনঃজুন থেকে দর্শকশূন্য মাঠে প্রিমিয়ার লিগ শুরু করার ভাবনা কর্তৃপক্ষের

বিসিসিআই, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের মতো সংস্থাগুলি হয়তো নিজেদের সামলে নেবে। কিন্তু তুলনামূলক কম সচ্ছল বোর্ডগুলির পক্ষে এই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সামাল দেওয়া সম্ভব নাও হতে পারে। ফলে নিশ্চিত ভাবে কর্মী ছাটাই হবে। পরিস্থিতি সামাল দিতে কর্মীদের বেতন কমানো হতে পারে। তাতেও কি সমস্যা মিটবে! বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড, শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের মতো বোর্ডগুলি দেউলিয়া হয়ে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। যা আগামী দিনে ব্যাপক ভাবে প্রভাব পড়তে পারে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আয়োজনে। 

আরও পড়ুনঃশোয়েব আখতার-এর কেরিয়ার বাঁচিয়েছিলেন এক প্রাক্তন বিসিসিআই কর্তা, জানুন নেপথ্য-কাহিনি

আরও পড়ুনঃলকডাউনে মেয়ের সঙ্গে বলিউড গানে আইটেম ডান্স ডেভিড ওয়ার্নারের, দিলেন বক্সিং কোচিংও

২০১৪ সালে প্রায় ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে বিশ্ব সম্প্রচার স্বত্ব বিক্রি করেছিল বিসিবি। চলতি মাসে নতুন চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা এখন অনিশ্চিত। অন্যদিকে নিজেদের দেশে ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলার কথা ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার। এই সিরিজ থেকে লাভবান হতে পারত তারা। কিন্তু সিরিজের ভবিষ্যত এখন অন্ধকার। আগামী ৬ মাস ক্রিকেট বন্ধ থাকলে কম স্বচ্ছল বোর্ডগুলি বড়সড় সমস্যার মুখে পড়তে পারে। গত জানুয়ারিতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে একটি ম্যাচ সম্প্রচারক চ্যানেলের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছে। এখনও পর্যন্ত নতুন চুক্তি হয়নি। আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ হওয়ার কথা। সেটাও এবার বাতিল হওয়ার পথে। পাকিস্তান সুপার লিগ মাঝপথে বন্ধ হয়েছে। এশিয়া কাপের ভবিষ্যত কী হবে তা নিয়ে চিন্তিত পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। এপ্রিলে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর নতুন স্পনসর ও সম্প্রচারক খুঁজে না পেলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের অবস্থাও খারাপ হতে পারে। চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড় এবং অন্যান্য স্টাফদের বেতন মেটাতে সব থেকে সমস্যায় পড়বে বোর্ডগুলি। একই হাল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের। ফুটবলের ক্ষেত্রে ব্যাপক আর্থিক ক্ষতি দেখে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এসেছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ামক সংস্থা ফিফা।ফুটবল খেলীয় দেশগুলির জন্য আর্থিক প্যাকেজ দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে ফিফার তরফে।  এবার ক্রিকেটের ক্ষেত্রে আইসিসি কী ব্যবস্থা নেয় সেদিকেই তাকিয়ে ক্রিকেট বিশ্ব।