তারকা ঠাসা দল বানিয়েও আইপিএল খেতাব জয় সম্ভব হয়নি। এবার তাই নতুন অবতারে আইপিএল-এ আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর বা আরসিবি। সম্ভবত শুক্রবারই নতুন রূপে সামনে আসতে চলেছে বেঙ্গালুরুর দলটি। তবে দলের এই নাম বদল নিয়ে বৃহস্পতিবার একপ্রস্ত নাটক হয়ে গেল। 

এ দিন আচমকাই নিজেদের সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেল থেকে প্রোফাইল এবং কভার ফোটো সরিয়ে দেয় আরসিবি। আচমকা এই ঘটনায় অবাক হয়ে যান আরসিবি-র ভক্তরা। এমন কী দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, তারকা ক্রিকেটার এ বি ডেভিলিয়ার্স, যুজবেন্দ্র চহালরাও বিস্ময় প্রকাশ করেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই দলের তরফে ঘোষণা করা হয়, নতুন অবতারে শুক্রবারই আত্মপ্রকাশ করবে আরসিবি। সেই কারণেই সাময়িকভাবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সাময়িকভাবে ছবি সরানো হয়েছে। 

আসলে একটি নামী ঋণদানকারী সংস্থার সঙ্গে তিন বছরের জন্য গাঁটছড়া বেঁধেছে আরসিবি। নতুন স্পন্সরের সঙ্গেই ভাগ্য বদলের খোঁজে ভোলবদল করতে চলেছে আইপিএল-এর দলটি। জনপ্রিয়তার নিরিখে আইপিএল-এ অন্য অনেক দলকেই হয়তো টেক্কা দেবে বিরাট কোহলির দল। কিন্তু আইপিএল-এর ইতিহাসে আরসিবি-র পারফরম্যান্স একেবারেই সন্তোষজনক নয়। 

২০১৬ সালে আইপিএল-এর রানার আপ হয়েছিল বিরাট কোহলির দল। এটাই এখনও পর্যন্ত তাদের সেরা পারফরম্যান্স। ২০১৭ সালের মতো গতবছরও আট দলের মধ্যে সবার শেষে ছিল বেঙ্গালুরুর দলটি। মাঝে ২০১৮ সালে ছ' নম্বরে শেষ করে আরসিবি। 

তবে আরসিবি-র নতুন অবতারে আত্মপ্রকাশ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছেন অনেক ভক্তই। কেউ কেউ তো অধিনায়ক বিরাটকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি। তাঁদের সাফ কথা, লোগো, নাম বদলে আসলে কিছু হবে না। ভাল ক্রিকেট না খেললে আরসিবি-র ভাগ্য বদলাবে না। এ বারও অ্যারন ফিঞ্চ, ক্রিস মরিস, ডেল স্টেন-দের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের দলে নিয়েছে আরসিবি। ২০২০-তে তাদের ভাগ্য় বদলায় কি না, সেটাই এখন দেখার।