করোনা বিধি না মেনে নাইট ক্লাবে গিয়ে গ্রেফতার হলেন প্রাক্তন ভারতীয় তারকা ব্যাটসম্যান সুরেশ রায়না। প্রাক্তন ক্রিকেট তারকার সঙ্গে গ্রেফতার হন জনপ্রিয় গায়ক গুরু রানধাওয়া। লন্ডনে নতুন প্রজাতির করোনা ভাইরাসের হদিশ মেলার পর , বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করেছে বিভিন্ন দেশের সরকার। ২৫শে ডিসেম্বর ও নতুন বছর উপলক্ষ্যে এদেশেও বিশেষ সতর্কতা নেওয়া হয়েছে। সেই নিয়ন লঙ্ঘন করাতেই সুরেশ রায়না সহ অন্য়ান্যদের গ্রেফতার করা হয়। যদিও পরে তারা জামিন পেয়ে যান।

নতুন প্রজাতির করোনা থেকে সতর্কতার জন্য নাইট কার্ফু জারি করেছে মহারাষ্ট্র সরকার। ক্লাব বন্ধ করার নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিয়েছিল তারা। নতুন বছরকে মাথায় রেখে ২২ ডিসেম্বর থেকে ৫ জানুয়ারি অবধি করোনা রুখতে বেশ কিছু নিয়ম এনেছে সরকার। সেই নিয়ম না মেনে অতিরিক্ত সময় খোলা ছিল ক্লাব। সেখানে ছিলেন রায়না-সহ অন্যেরা। সোমবার গভীর রাতে ড্রাগন ফ্লাই ক্লাবে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে থেকে ৩৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিস। তাঁদের মধ্যেই ছিলেন রায়না ও গুরু রনধাওয়া। হৃত্তিক রোশনের প্রাক্তন স্ত্রী সুজান খানও গ্রফতার হন বলে খবর। তাঁদের বিরুদ্ধে আইনের ১৮৮, ২৬৯ এবং ৩৪ ধারায় অভিযোগ আনা হয়। তারা আপাতত জামিনে মুক্ত। 

ব্রিটেনে নতুন করে করোনার প্রকোপ দেখা দেওয়ায় মহারাষ্ট্র সরকার সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে কর্পোরেশন এলাকায় নাইট কার্ফু জারি করেছে। ২২ ডিসেম্বর থেকে ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে এই কারফিউ৷ রাত ১১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সময় নির্ধারিত হয়েছে কারফিউয়ের জন্য৷ গতকালই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেন। পাশাপাশি দূরত্ব বজায় রাখা ও মাস্ক পড়াও বাধ্যতা মূলক করা হয়। কিন্তু দেশের  প্রাক্তন ক্রিকেটার হয়েও কীভাবে এমন হটকারী কাজ করলেন সুরেশ রায়না তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।