আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে ইতি টানলেন যুবরাজ সিং। মুম্বইয়ের এক পাঁচতারা হোটেলে সাংবাদিক সম্মেলন করে অবসরের কথা ঘোষণা করলেন সাদা বলের ক্রিকেটের সর্বকালের শ্রেষ্ঠদের অন্যতম এই ক্রিকেটার। বিদায় বেলায় সতীর্থ বীরেন্দ্র সেওয়াগ, হরভজন সিং, আশীষ নেহরা, জাহির খান-দের কথা তাঁর মুখে আসলেও বর্তমান ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির কথা কিন্তু একবারও বললেন না যুবি। আর প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির নাম করলেন একবারই। কোথাও কি অভিমান রয়ে গিয়েছে তাঁর?

কোন অধিনায়কের প্রভাব তাঁর উপর সবচেয়ে বেশি এই প্রসঙ্গে যাঁর অধীনে তাঁর আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়েছিল, সেই সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের কথাই বেশই বললেন। আর এখানেই তিনি জানালেন ধোনির নেতৃত্বে তিনি দুটি বড় টুর্নামেন্ট জিতেছেন। ওই একবারই এল তাঁর মুখে ধোনির নাম। অথচ ক্রিকেট কেরিয়ারে কিন্তু ধোনির সঙ্গেই জুটি বেঁধে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন তিনি। ১০টি ১০০ রানের বেশি জুটি আছে তাঁদের।

যুবরাজ জানালেন চলতি বিশ্বকাপে তাঁর খেলার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু তাঁকে বোর্ডের পক্ষ থেকে সাফ জানানো হয়েছিল 'ইয়ো ইয়ো' টেস্টে সফল তে না পারলে অবসর নিতে হবে। যুবি সেই টেস্ট পাসও করেন, কিন্তু ২০১৭ সালের জুন মাসে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ব্যর্থ হওয়ার পর আর তাঁর দিকে ফিরে তাকানো হয়নি। অথচ ২০১৮ সালে ধোনি চরম ব্যর্থ হওয়ার পরও তাঁকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

ক্রিকেটে কি 'ইয়ো ইয়ো' টেস্ট দরকারি? এই প্রসঙ্গে এখনই মুখ খুলতে চাননি ।যুবরাজ। বলেছেন, এখন বিশঅবকাপ চলছে, ভারতীয় দল সেখানে খেলছে। এখন এই নিয়ে মন্তব্য করে অযথা বিতর্ক বাড়াতে চান না। আর এই কথা বলেই বিতর্কের ইন্ধন দিয়ে রেখেছেন যুবরাজ।

ভারতীয় ক্রিকেটে আচমকাই ইয়ো ইয়ো টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল অধিনায়ক বিরাট কোহলির ইচ্ছাতেই। মরসুমের মাঝে হঠাত এই নিয়ম বদল নিয়ে অতীতে সরব হয়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্য়ায়ও। সংশ্লিষ্ট মহল বলছে, সাংবাদিক সম্মেলনে একবারও বিরাটের নাম না করে এবং একই সঙ্গে ইয়ো ইয়ো টেস্ট নিয়ে বিতর্ক হতে পারে - এই ইঙ্গিত দিয়েই বিরাটের প্রতি অভিমান প্রকাশ করেছেন যুবরাজ।

এমনিতে বিরাটের সঙ্গে যুবরাজের সম্পর্ক অত্যন্ত ভাল বলেই জানা যায়। অতীতে মাঠে দুই ক্রিকেটারই দুই ক্রিকেটারের প্রতি সেই ভালবাসা প্রকাশও করেছেন। কিন্তু ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়ার পর থেকে যুবরাজ-বিরাটের সম্পর্কটা কতটা মধুর আছে তাই নিয়ে প্রশ্মন তুলে দিল যুবির বিদায় বেলার সাংবাদিক সম্মেলন। তবে তাঁর চলে যাওয়া কথা জেনেই কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারত অধিনায়ক, যুবরাজ সম্পর্কে তাঁর ভালবাসা-শ্রদ্ধা উজার করে দিয়েছেন।