৫১ টি শক্তিপীঠ দর্শনেই মহাপূণ্য, যেখানে মা সতীর দেহের বিভিন্ন অংশ পতিত হয়েছিল

| Sep 28 2022, 10:30 AM IST

৫১ টি শক্তিপীঠ দর্শনেই মহাপূণ্য, যেখানে মা সতীর দেহের বিভিন্ন অংশ পতিত হয়েছিল
৫১ টি শক্তিপীঠ দর্শনেই মহাপূণ্য, যেখানে মা সতীর দেহের বিভিন্ন অংশ পতিত হয়েছিল
Share this Article
  • FB
  • TW
  • Linkdin
  • Email

সংক্ষিপ্ত

পৃথিবীতে বিপর্যয়ের আশঙ্কা বেড়ে উঠতে পারে এই আশঙ্কায় ভগবান বিষ্ণু তাঁর সুদর্শন চক্র দিয়ে মাতা সতীর দেহ ছেদন শুরু করেন। এভাবেই তার শরীরের বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন স্থানে পড়ে যায়। মায়ের দেহ ৫১ খন্ড হয়েছিল, এইভাবে ৫১ টি শক্তিপীঠ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

হিন্দু ধর্মে শক্তিপীঠের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। প্রতিটি শক্তিপীঠের নিজস্ব গল্প আছে। ৫১টি শক্তিপীঠ দেবীপুরাণে বর্ণিত হয়েছে । এর মধ্যে ৪২টি শক্তিপীঠ ভারতে রয়েছে। বাংলাদেশে রয়েছে ৪ টি। ২ টি নেপালে এবং ১ টা করে শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান এবং তিব্বতে রয়েছে। প্রতিটি শক্তিপীঠের নিজস্ব গল্প আছে। শক্তিপীঠের কিংবদন্তি ভগবান শিব এবং তাঁর স্ত্রী মাতা সতীর সঙ্গে সম্পর্কিত।

কিংবদন্তী অনুসারে, মা সতীর পিতা দক্ষিণ প্রজাপতি কানখাল নামক স্থানে একটি মহাযজ্ঞ করেছিলেন যা বর্তমানে হরিদ্বার নামে পরিচিত। সেই যজ্ঞে ব্রহ্মা, বিষ্ণু, ইন্দ্রসহ সকল দেব-দেবীকে ডাকা হলেও ভগবান শিবকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। মাতা সতী এই বিষয়ে খবর পান। যজ্ঞে তাঁর স্বামীকে আমন্ত্রণ না করার উত্তর জানতে তিনি তার পিতা দক্ষিণের কাছে পৌঁছান।

যখন শিবের ক্রোধে শক্তিপীঠ প্রতিষ্ঠিত হয়
মা সতী তার পিতাকে এই প্রশ্ন করলে তিনি ভগবান শিবকে গালিগালাজ করেন। তাঁকে অপমান করেন। এই অপমানে ক্ষুব্ধ হয়ে মা সতী একই যজ্ঞের অগ্নিকুণ্ডে আত্মাহুতি দেন। ভগবান শিব যখন এই তথ্য পেয়েছিলেন, তিনি ক্রুদ্ধ হয়েছিলেন এবং তাঁর তৃতীয় চোখ খুলেছিলেন।তিনি তান্ডব করতে লাগলেন এবং মা সতীর মৃতদেহ যেখানে ছিল সেখানে গেলেন। তিনি মা সতীর মৃতদেহ তুলে তার কাঁধে রাখলেন। ভগবান শিবের তান্ডব শুরু হয়। তিনি কৈলাসের দিকে ফিরে গেলেন। পৃথিবীতে বিপর্যয়ের আশঙ্কা বেড়ে উঠতে পারে এই আশঙ্কায় ভগবান বিষ্ণু তাঁর সুদর্শন চক্র দিয়ে মাতা সতীর দেহ ছেদন শুরু করেন। এভাবেই তার শরীরের বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন স্থানে পড়ে যায়। মায়ের দেহ ৫১ খন্ড হয়েছিল, এইভাবে ৫১ টি শক্তিপীঠ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

মা সেই শক্তিপীঠে কোন অংশে কোথায় এবং কী নামে পরিচিত জেনে নিন...

Subscribe to get breaking news alerts

  • মুকুট: পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদের কিরিটকন গ্রামে তাঁর মুকুট পড়েছিল। এখানে তিনি মাতা বিমলা নামে পরিচিত ছিলেন।
  • মণিকর্ণিকা: তার কানের রত্ন মণিকর্ণিকা উত্তর প্রদেশের বারাণসীর ঘাটে পড়েছিল, যার কারণে ঘাটটির নামকরণ করা হয়েছিল মণিকর্ণিকা এবং মাতা মণিকর্ণী নামে পরিচিত।
  • পিঠ: তামিলনাড়ুর কন্যাকুমারীতে মায়ের পিঠের অংশ পড়েছিল। এখানকার শক্তিপীঠে মা সর্বাণী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • বাম নিতম্ব: মা সতীর বাম নিতম্ব মধ্যপ্রদেশের অমরকন্টকের কমলাধব স্থানের কাছে সোন নদীর তীরে পড়েছিল।
  • ডান নিতম্ব: মায়ের ডান নিতম্ব অমরকণ্টকে পড়েছিল এবং সেখান থেকেই নর্মদা নদীর উৎপত্তি হয়েছিল এবং মাকে বলা হত দেবী নর্মদা।
  • চোখ: দেবী সতীর চোখ পড়েছিল হিমাচল প্রদেশের বিলাসপুর জেলায়। এখানে নয়না দেবীর মন্দির নির্মিত হয়েছিল এবং মা মহিষাকে মর্দিনী বলা হয়েছিল।
  • নাক: বাংলাদেশের শিকারপুর বরিশাল থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে সোঁধ নদীর কাছে তার নাক পড়েছিল। এখানে তিনি মাতা সুনন্দা নামে পরিচিত ছিলেন।
  • গলা: কাশ্মীরের কাছে পাহলগামে মা সতীর গলা পড়েছিল এবং তাকে মহামায়া রূপে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল।
  • জিহ্বা: হিমাচল প্রদেশের কাংড়ায় তার জিভ পড়েছিল এবং এখানে তাকে অম্বিকা বলা হত।
  • বাম বুক: পাঞ্জাবের জলন্ধনে ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনের কাছে একটি পুকুরে মাতা সতীর বাম স্তন পড়েছিল। এখানে মা ত্রিপুরমালিনী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • ডান বক্ষঃ মাতা সতীর ডান স্তনটি উত্তর প্রদেশের চিত্রকূটের রামগিরিতে পড়েছিল এবং তিনি দেবী শিবানী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • হৃদয়: গুজরাটের আম্বাজি মন্দির বেশ বিখ্যাত। এখানে তার হৃদয় পড়ে যায় এবং মা সতীকে বলা হয় অম্বাজি।
  • চুল: উত্তর প্রদেশের বৃন্দাবনে তার একগুচ্ছ চুল পড়েছিল এবং তিনি উমা দেবী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • উপরের পাটি: তামিলনাড়ুর কন্যাকুমারীর সুচিরথাম শিব মন্দিরের কাছে তার উপরের মোলার পড়েছিল। এখানে পারভো দেবীকে নারায়ণী বলা হয়।
  • নীচের পাটি : দেবী সতীর নীচের গুড়টি পঞ্চসাগরে পড়েছিল এবং এখানে তিনি দেবী বারাহী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • বাম পায়ের গোড়ালি: বাংলাদেশের ভবানীপুরে দেবী সতীর বাম পায়ের গোড়ালি পড়েছিল।
  • ডান পায়ের গোড়ালি: তার ডান পায়ের গোড়ালি অন্ধ্রপ্রদেশের কুরনুলের ভবানীপুরে পড়েছিল এবং এখানে তাকে দেবী শ্রী সুন্দরী বলা হতো।
  • বাম গোড়ালি: পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় মাতা সতীর বাম গোড়ালি পড়েছিল। এখানে দেবী কাপালিনীর নামে একটি মন্দির নির্মিত হয়েছিল।
  • পেট: গুজরাটের জুনাগড়ে মা সতীর পেট পড়েছিল। এখানে তিনি চন্দ্রভাগা নামে পরিচিত ছিলেন।
  • উপরের ঠোঁট: তার উপরের ঠোঁটটি মধ্যপ্রদেশের ক্ষিপ্রা নদীর তীরে অবস্থিত উজ্জয়িনীতে পড়েছিল। এখানে তিনি মাতা অবন্তী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • চিবুক: মহারাষ্ট্রের নাসিকে তার চিবুক পড়েছিল। এখানে মাতা সতীর নাম ছিল দেবী ভ্রমরী।
  • গাল : অন্ধ্র প্রদেশের সর্বশাইল রাজমুন্দ্রিতে তার গাল পড়েছিল এবং তাকে বিশ্বেশ্বরী দেবী বলা হত।
  • বাম পায়ের আঙুল: তার বাম পায়ের আঙুল রাজস্থানের বিরাটে পড়েছিল, যেখানে মা দেবী অম্বিকা নামে পরিচিত ছিলেন।
  • ডান কাঁধ: পশ্চিমবঙ্গের হুগলিতে মা সতীর ডান কাঁধ পড়েছিল এবং তাকে দেবী কুমারী বলা হত।
  • বাম কাঁধ: দেবী সতীর বাম কাঁধ ভারত-নেপাল সীমান্তের মিথিলায় পড়েছিল এবং এখানে তিনি দেবী উমা নামে পরিচিত ছিলেন।
  • পায়ের হাড়: মায়ের পায়ের হাড় পশ্চিমবঙ্গের বীরভূমে পড়েছিল এবং তাকে পাওয়া গিয়েছিল কালিকা দেবী।
  • কান: কথিত আছে যে মা সতীর উভয় কান কর্নাটে (অজানা স্থানে) পড়েছিল।
  • শরীরের কেন্দ্রীয় অংশ: পশ্চিমবঙ্গের বক্রেশ্বরে মাতা সতীর দেহের মাঝখানের অংশ এবং তাকে মহিস্মর্দিনী বলা হত।
  • হাত ও পা: দেবী সতীর হাত ও পা বাংলাদেশের খুলনা জেলায় পড়েছিল এবং এখানে তিনি যশোরেশ্বরী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • নীচের ঠোঁট: পশ্চিমবঙ্গের আথাস, তার নীচের ঠোঁট নেমে গিয়েছিল এবং তাকে দেবী ফুল্লরা বলা হত।
  • কন্ঠ: তার নেকলেস পশ্চিমবঙ্গের নন্দীপুরে পড়েছিল, যেখানে তিনি মা নন্দনী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • নুপূর: শ্রীলঙ্কার একটি অজ্ঞান জায়গায় তার পায়ের গোড়ালি পড়ে গিয়েছিল। কথিত আছে যে শ্রীলঙ্কার ত্রিনকোমালির মন্দিরটিই প্রথম, যা পর্তুগিজ বোম্বারিতে ভেঙে ফেলা হয়েছিল।
  • হাঁটু: তার উভয় হাঁটু নেপালের পশুপতি মন্দিরের কাছে পড়েছিল এবং এখানে তাকে দেবী মহাশিরা বলা হয়।
  • ডান হাত: তিব্বতের কাছে মানসরোবরে দেবী সতীর ডান হাত পড়েছিল। এখানে তিনি দক্ষিণানী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • নাভি: মা সতীর নাভি উড়িষ্যার উৎকল শহরে পড়েছিল এবং তাকে দেবী বিমলা বলা হয়।
  • মাথা: দেবীর মস্তক নেপালের পোখারার মুক্তিনাথ মন্দিরে পড়েছিল এবং এখানে তিনি গণ্ডকী চণ্ডী দেবী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • বাম হাত: পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলায় মায়ের বাম হাত পড়েছিল। এখানে তিনি বহুলা দেবী নামে পরিচিত ছিলেন। দেবীর বাম হাত পড়ে গিয়েছিল।
  • ডান পা: মাতা সতীর ডান পা ত্রিপুরায় পড়েছিল এবং তাকে ত্রিপুরা সুন্দরী বলা হত।
  • ডান বাহু: দেবী সতীর ডান বাহুটি বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার চন্দ্রনাথ পর্বতের চূড়ায় পড়েছিল। এখানে তিনি দেবী ভবানী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • বাম পা: পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে বাম পা পড়েছিল এবং একে ভ্রামরি বিলম্ব বলা হয়।
  • যোনি: আসামের গুয়াহাটির নীলাম্পল পর্বতে তার যোনি পড়েছিল এবং মাতা সতী দেবী কামাখ্যা নামে পরিচিত ছিলেন।
  • ডান পায়ের আঙুল: তার ডান পায়ের আঙুলটি পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলায় পড়েছিল এবং তার নাম ছিল দেবী যুগ্যা।
  • পায়ের আঙুল: দেবী সতীর দ্বিতীয় আঙুল পড়েছিল কলকাতার কালীঘাটে। সেই স্থান কালীপীঠ এবং মাতা মা কালিকা নামে পরিচিত ছিল।

আরও পড়ুন- দুর্গাপুজা ও তার পরবর্তী সময় এই ৫ রাশির জন্য খুব চাপের হতে পারে, দেখে কোন রাশি আছে এই

আরও পড়ুন- দুর্গাপুজোর সময় থেকে বাকি বছরটা এই ৪ রাশির জন্য অত্যন্ত শুভ, জেনে নিন কারা আছেন 

আরও পড়ুন- এই বছর মা দুর্গার আগমণ হবে 'হাতিতে' চড়ে, জেনে নিন মায়ের প্রতিটি বাহনের গুরুত্ব

  • আঙুল: দেবী সতীর হাতের আঙুল উত্তরপ্রদেশের প্রয়াগরাজে পড়েছিল এবং সেখানে তিনি মা ললিতা নামে পরিচিত হন।
  • বাম উরু: মা সতীর বাম উরু বাংলাদেশের সিলেট জেলায় পড়েছিল এবং সেখানে তিনি দেবী জয়ন্তী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • পায়ের গোড়ালি: হরিয়ানার কুরুক্ষেত্রে তার পায়ের গোড়ালি পড়েছিল এবং তাকে মা সাবিত্রী বলা হত।
  • কব্জি: তার কব্জি আজমিরের পুষ্করে পড়েছিল এবং এখানে মা দেবী গায়ত্রী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • গলা: বাংলাদেশেই তার গলা পড়েছিল এবং মাতা সতী মহালক্ষ্মী নামে পরিচিত ছিলেন।
  • ছাই : তার ছাই পশ্চিমবঙ্গের কোপাই নদীর তীরে পড়েছিল। তিনি দেবগর্ভ রূপে প্রতিষ্ঠিত হন।
  • ডান উরু: বিহারের পাটনায় মাতা সতীর ডান উরু পড়েছিল। এটি পত্নেশ্বরী শক্তিপীঠ নামে পরিচিত ছিল।
  • ত্রিনেত্র: মহারাষ্ট্র কোলহাপুর দেবী সতীর ত্রিনেত্র পড়েছিল এবং এটি মাতা মহালক্ষ্মীর বিশেষ স্থান হিসাবে বিবেচিত হয়।

Read more Articles on
null