বুধবার ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্রে প্রচারে নামেন বামফ্রন্ট মনোনীত সিপিআইএম প্রার্থী ফুয়াদ হালিম। এদিন প্রায় কয়েকশো কর্মী সমর্থককে নিয়ে এক বর্ণাঢ্য রোড শো করেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার আরেক সিপিআইএম নেতা সুজন চক্রবর্তী। বজবজ-এর হালদার পাড়া থেকে শুরু হয়ে পূজালী হয়ে রোড শো শেষ হয় সাতগাছিয়া বিধানসভার বিড়লাপুরে।

ম্যাটাডোরে করে যেতে যেতে এসলাকার মানুষদের উদ্দেশ্যে হাত নাড়তে দেখা যায় প্রার্থী ফুয়াদ হালিম ও সুজন চক্রবর্তীকে। ফুয়াদ হালিমের এইবারের লড়াইটা খুবই শক্ত। কারণ এই কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন মমতা বন্দোপাধ্য়ায়ের ভাইপো তথা তৃণমূল নেতা অভিষেক বন্দোপাধ্যায়।

অভিষেককে হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে মানতে নারাজ হালিম। তাঁর মতে হেভিওয়েট তকমা পেতে পারেন একমাত্র ভোটাররাই। তাঁরাই ঠিক করবেন কে জিতবেন, কেই বা হারবেন। সেইসঙ্গে গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বামেদের ভোটবাক্সে রক্তশূন্যতাকেও পাত্তা দিচ্ছেন না ডায়মন্ড হারবারের বাম প্রার্থী। তাঁর দাবি পঞ্চায়েত নির্বাচনে ৯৩ শতাংশ আসনে সিপিআইএম প্রার্থীকে মনোনয়নই জমা দিতে দেওয়া হয়নি। কাজেই সেই নির্বাচনের ভোট পরিসংখ্যান থেকে চিত্রটা স্পষ্ট হতে পারে না।

এই কেন্দ্রে বিজেপি-র টিকিটে প্রার্থী হয়েছেন নীলাঞ্জন রায়। ফুয়াদ হালিমের দাবি গোটা পশ্চিমনবঙ্গের মতোই ডায়মন্ড হারবারেও বিজেপি-তৃণমূলের গোপন আঁতাত রয়েচে। তাই একজন বাইরে থেকে এনে দুর্বল প্রার্থী দিয়ে তৃণমূলের সুবিধা করে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু ডায়মন্ড হারবারের মানুষের সামনে 'পকোরা-তেলেভাজা' জোট ধরা পড়ে গিয়েছে বলেই আশাবাদী তিনি।