লোকসভা নির্বাচন ২০১৯-এর ভোট গণনা এখন মাঝপথে। তবে অনেক জায়গাতেই ভোটের ফলাফল কী হতে চলেছে তার একটা আভাস পাওয়া যাচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের অনেক নিশ্চিত আসনেই থাবা বসিয়েছে বিজেপি। বাঁকুড়া কেন্দ্রে বর্তমানে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা অভিজ্ঞ রাজনীতিক সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

আপাতত বিজেপি প্রার্থী সুভাষ সরকার-এর থেকে ২৫০০০-এরও বেশি ভোটে পিছিয়ে পড়েছেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। আর ব্যবধান যত বাড়ছে ততই বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের উচ্ছ্বাসও বাড়ছে। ইতিমধ্যেই বাঁকুড়া শহর জুড়ে শুধু 'জয় শ্রীরাম' ও 'জয় মোদী' -এর বাইরে কোনও শব্দ পাওয়া যাচ্ছে না। রাস্তায় রাস্তায় দলীয় পতাকা নিয়ে উদযাপনে মেতেছেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। শুরু হয়ে গিয়েছে মিষ্টি বিতরনও।

এদিন গণনা কেন্দ্রের বাইরে বিজেপির ক্যাম্প অফিসে সকাল থেকেই একে একে জড়ো হচ্ছিলেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। ব্যাপক খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন করা হয়েছে। গণনা মাথে থাকলেও জয়ের সম্ভাবনা স্পষ্ট হতেই গণনা কেন্দ্রে এসে পৌঁছান বিজেপি প্রার্থী সুভাষ সরকার। তাঁর মতে শেষ পর্যন্ত ব্যবধান ১ লক্ষ ছাড়াবে।
    
পেশায় চিকিৎসক সুভাষ সরকারের দাবি, এর আগে কংগ্রেস, বাম, তৃণমূল সবাই গরীব মানুষের হয়ে কাজ করবে বলে ধোকা দিয়েছে। কিন্তু, মোদী সরকার গরীব মানুষের জন্য একের পর এক প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এই ওষুধেই সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মতো অভিজ্ঞ রাজনীতিককে পিছিয়ে দেওয়াটা সম্ভব হয়েছে।

অপরদিকে বেলা যত গড়িয়েছে ততই বাঁকুড়ায় গণনা কেন্দ্রের বাইরে তৃণমূল কংগ্রেসের ক্যাম্প অফিসে মানুষের সংখ্যা কমেছে। আপাতত বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদই তৃণমূলের ক্য়াম্প অফিস শুনশান হয়ে গিয়েছে।