কবীর সিং ছবির পরিচালকের মন্তব্য বিতর্কে ঝড় উঠেছিল। অনুপনা চোপড়ার সঙ্গে একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন প্রেমিকাকে চড় না মারা গেলে সেই প্রেম গভীর নয়। এর পরে তাঁর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে সরব হন পরিচালক সন্দীপ রেড্ডি। কিন্তু ওই ভিডিওর বেশির ভাগ অংশই এডিট করা বলে দাবি করেন সন্দীপ।

সম্প্রতি এক জাতীয় সংবাদমাধ্য়মের কাছে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ওই ইন্টারভিউয়ের ভিডিওটি ভুল ভাবে দেখানো হয়েছে। সন্দীপের কথায়, আমার যা বলার ছিল আমি বলেছি। কিন্তু ওরা মন্তব্যের কিছু অংশ কেটে দেখিয়েছে। ভুল ভাবে ব্যাখ্যা হয় এমন ভাবেই দেখানো হয়েছে ভিডিওটা। ওই মন্তব্যের আগে ও পরে কী বলেছিলাম কিছুই সেগুলি দেখানো হয়নি। যার ফলে মহিলারা আবার আমার বিরুদ্ধে সরব হওয়ার আরও একটা সুযোগ পেয়ে গিয়েছেন। আমি শুধু আমার ছবির প্রধান চরিত্রের মানসিকতা কেমন সেটা বোঝানোর চেষ্টা করছিলাম। সেই চরিত্রটি হিংসার মাধ্যমে ভালোবাসা প্রকাশ করে। আমি না। 

আরও পড়ুনঃ 'কবীর সিং' নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল তর্ক! নায়কের বেশে স্রেফ খলনায়কের রাজ

কবীর সিং চরিত্রে একটি দৃশ্য় রয়েছে যেখানে প্রধান দুই চরিত্র শাহিদ কাপুর ও কিয়ারা আডবানী পরস্পরকে চড় মারবে। এই দৃশ্য়টির সপক্ষে সন্দীপ যুক্তি দিয়েছিলেন, প্রেম গভীর হলে প্রেমিকাও যেমন প্রেমিককে চড় মারতে পারে, প্রেমিকও পারে। এমনকী এও বলেন, সিনেমায় প্রেমিকা কোনও কারণ ছাড়াই কবীরকে চড় মেরেছিল। কিন্তু কবীরের তাও প্রেমিকাকে চড় মারার কারণ ছিল। নিজের প্রেমিকাকেই যদি  ইচ্ছে মতো স্পর্শ করা না যায়, তা হলে সেটা আর প্রেম কীসের। 

ছবিতে দেখা যাবে প্রীতিকে পাওয়ার জন্য প্রতি মুহূর্তে চেষ্টা করে যাচ্ছে কবীর। প্রীতির সঙ্গে কবীর যা করছে, তা-ও যেন একেবারে মাথা পেতে মেনে নিচ্ছে প্রীতি। তার নিজের কোনও মতামত নেই। এমনই একটি ছবিকে সমালোচনা করার জন্য সমালোচকদের উদ্দেশে পরিচালক সন্দীপ রেড্ডি বলেছেন, অর্জুন রেড্ডি ছবিটিতে বিভিন্ন বিষয় সমালোচনা হয়েছিল। কিন্তু এই ছবিতে শুধু নারীবাদী মনোভাব নিয়েই সমালোচনা হচ্ছে। অন্য কিছু নিয়ে কেউ কথাই বলছে না। ওরা আমায় ঘৃণা করে হয়তো। 

এই ছবি ঘিরে তীব্র নিন্দা চললেও বক্স অফিসে এই ছবি টেক্কা দিয়েছে সলমন খানের ভারতকেও। ইতিমধ্যেই এই ছবি ২৩৯ কোটি টাকা ব্যবসা করে ফেলেছে।