রাণাঘাটের রাণু, সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে এখন অতি পরিচিত একটি নাম। প্রশংসা হোক বা সমালোচনা, তর্ক-বিতর্কে ঘেরা রাণুর নাম প্রায়শই সংবাদ শিরোনামে নিজের জায়গা করে নিতে সফল। আর এই উৎসবের মরসুমে এখনও উঁকি দিচ্ছে রাণু গান। কখনও তার পুরনো গান যা ভাইরাল হয়েছে তা, কখনও বা বিভিন্ন রিয়্যালিটি শো-এ তার গানের ঝলক। আর এবার তেমনই একটি গান উঠে এল সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে রাণু গাইলেন, তুঝে দেখা তো ইয়ে জানা সনম...।

বলা যায়, চলতি বছর পুজোর ট্রেন্ড এক কথায় রাণু মণ্ডল। অগাস্ট মাস থেকেই যাঁর ভাগ্যের চাকা ঘুরেছিল এক ভিন্ন পথে। স্টেশন চত্বর থেকে শুরু করে বলিউডের স্টুডিতে পৌঁছতে যাঁর সময় লেগেছিল মাত্র কয়েকটা দিন। তিনিই রাণু মণ্ডল, যাঁর গান, কথা এখন সাধারণ মানুষের মুখে মুখে ফেরে। একসময় যিনি খাবারের জন্য দু পয়সা রোজগার করতেন গান গেয়ে, আজ সেই গানই ভাইরাল নেট দুনিয়ায়। এভাবেই ভাগ্য বদলেছিল রাণুর। বহু মানুষ নতুন করে স্বপ্নও দেখেছে তাঁর এই সাফল্য দেখে। 

আরও পড়ুন-  দীপাবলি উদযাপনে চাঁদের হাট অমিতাভের বাড়িতে, দেখুন সেই নজরকাড়া ফটোগ্যালারি

তবে লতা মঙ্গেশকরের গান গেয়ে যেমন তিনি জনপ্রিয় হয়েছেন, তেমনই একাধিকবার বিতর্কেও জড়িয়ে পড়েন তিনি। কখনও ভক্তদের নিয়ে মন্তব্য করে, কখনও আবার সলমন খানের বিষয়।

এক সময় যাঁর গান গেয়ে দুপয়সা রোজগার করেছেন রাণু, একদিন সেই গানই যে পৌঁচ্ছে যাবে স্বয়ং লতা মঙ্গেশকরের কানে তা বোধ হয় স্বপ্নেও ভাবেননি রাণু মণ্ডল। চাঁচাছোলা কন্ঠস্বর, স্পষ্ট উচ্চারণ। তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে গানও গাওয়ান হিমেশ রেশমিয়া। কিন্তু খোদ লতা মঙ্গেশকর কী জানিয়েছিলেন রাণু প্রসঙ্গে জানেন? এক সাক্ষাত্কারে লতা মঙ্গেশকরকে প্রশ্ন করা হয় রাণু প্রসঙ্গে। তিনি স্পষ্ট উত্তর দেন, 'নকল করে বেশি দূর এগোনো যায় না। আমার বা কিশোরদা, রফি সাহেব, মুকেশ ভাইয়া বা আশার গান গেয়ে স্বল্প সময়ে নজর কাড়া যায়, কিন্তু সে সাফল্য দীর্ঘস্থায়ী হয় না'।

আরও পড়ুন- এ কি হাল হয়েছে আমির কন্যা ইরার, দেখুন সেই ভাইরাল ভিডিও

এর প্রত্যুত্তরে রাণু মন্ডল জানিয়েছিলেন, তিনি লতা মঙ্গেশকরের থেকে অনেক ছোট, ভবিষ্যতেও থাকবেন। ওঁনার গান শুনেই তাঁর বেড়ে ওঠা। বর্তমানে রাণু মন্ডলের হাতে একধিক গাানের সুযোগ। নিজের মত করে আবারও যেন জীবনটা গুছিয়ে নেওয়া স্পপ্ন দেখছেন রাণু। ডিডিএলজে-র এই গানে কী আবারও সমালোচনার ঝড় উঠবে... প্রশ্ন উঠছে।