Asianet News BanglaAsianet News Bangla

জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের ‘স্বপ্নের পুরুষ’ সুকেশ চন্দ্রশেখর, সুকেশকে বিয়ের কথাও নাকি ভেবেছিলেন অভিনেত্রী

সুকেশ চন্দ্রশেখরের মামলায় একের পর এক বলিউড অভিনেত্রীদের নাম জড়িয়েছে। বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের ‘স্বপ্নের পুরুষ’ সুকেশ চন্দ্রশেখর। সুকেশকে বিয়ের কথাও নাকি ভেবে ফেলেছিলেন জ্যাকলিন।
 

Jacqueline Fernandez wanted to marry Sukesh Chandrasekhar and called him the man of her dreams
Author
First Published Sep 17, 2022, 4:36 PM IST

প্রতারক সুকেশ চন্দ্রশেখরের মামলায় একের পর এক বলিউডি অভিনেত্রীদের নাম জড়িয়েছে। জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের পর নোরা ফতেহিকেও জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দিল্লি পুলিশের এনফোর্সমেন্ট অফেন্সেস উইং। এদিকে নিকি তাম্বোলি, চাহত খান্না, সোফিয়া সিং, আরুশা পাতিলের মতো নায়িকাদের নামও জড়িয়েছে এই মামলায়। একাধিক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, চন্দ্রশেখর তিহার জেলে থাকাকালীন এঁরা নাকি তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসতেন সহ চার অভিনেত্রী। তাঁদের দক্ষিণী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির 'হোতা' সেজেই নাকি প্রত্যেকের সঙ্গে আলাপ জমিয়েছিলেন সুকেশ। এবার প্রকাশ্যে এল আরও এক চাঞ্চল্যকর খবর। জাতীয় সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট বলছে, সুকেশকে নাকি বিয়ে করতে চেয়েছিলেন জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ। তাঁকেই নাকি নিজের আদর্শ পার্টনার মনে করেছিলেন অভিনেত্রী। সেই কারণেই সুকেশকে বিয়ের কথাও নাকি ভেবে ফেলেছিলেন জ্যাকলিন।

বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের ‘স্বপ্নের পুরুষ’ সুকেশ চন্দ্রশেখর! ২০০ কোটি টাকার তছরুপ মামলায় তদন্তে নেমে এমন কথাই জানতে পেরেছেন তদন্তকারীরা। সূত্রের খবর, ‘কনম্যান’ সুকেশকে বিয়েও করতে চেয়েছিলেন বি-টাউনের এই মোহময়ী নায়িকা।

আর্থিক তছরুপ মামলায় ইতিমধ্যেই তদন্তকারীদের মুখোমুখি হয়েছেন জ্যাকলিন। গত বুধবার দিল্লি পুলিশের আর্থিক দমন শাখায় তদন্তরকারীদের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হয়েছেন বলি তারকা। প্রায় আট ঘণ্টা ধরে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

Jacqueline Fernandez wanted to marry Sukesh Chandrasekhar and called him the man of her dreams

দিল্লি পুলিশের আর্থিক দমন শাখার স্পেশাল কমিশনার রবীন্দ্র যাদব সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে জানিয়েছেন যে, প্রচুর ধনদৌলত থাকায় বলিউডের অভিনেত্রীদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করতেন সুকেশ। এই ফাঁদে জড়িয়ে পড়েন জ্যাকলিনও। সুকেশের কথায় নায়িকা এতটাই প্রভাবিত হন যে, তাঁকে বিশ্বাসও করতে শুরু করেন। সেই সূত্রেই সুকেশকে ‘কাছের মানুষ’ ভাবেন জ্যাকলিন। তাঁকে বিয়ে করার কথাও ভাবেন।

রবীন্দ্রের কথায়, ‘‘জ্যাকলিন আরও বিপাকে পড়েছেন। কারণ, সুকেশের অপরাধের কথা জেনেও তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেননি।’’ এই জায়গায় জাল থেকে বেঁচে গিয়েছেন বলিপাড়ার আর এক অভিনেত্রী নোরা ফতেহি। রহস্যের গন্ধ পাওয়া মাত্রই সুকেশের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন করেন অভিনেত্রী। সুকেশের সঙ্গে নোরার কখনও সামনাসামনি দেখাও হয়নি বলে জানিয়েছেন তদন্তকারীরা। সূত্রের খবর, হোয়াটসঅ্যাপে দু’বার চন্দ্রশেখরে সঙ্গে কথা হয়েছিল নোরার। সম্প্রতি, নোরাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে দিল্লি পুলিশের আর্থিক দমন শাখা।

জ্যাকলিনের সঙ্গে তাঁর যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল, তা আগে জানিয়েছিলেন সুকেশের আইনজীবী। পরে সুকেশও এই কথা জনিয়েছিলেন। তিনি দাবি করেছিলেন, প্রেমজীবনের সঙ্গে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের কোনও সম্পর্ক নেই।
 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios