প্রয়াত কিংবদন্তি নৃত্যশিল্পী অমলাশঙ্কর।মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ১০১ বছর। অনুমান, বার্ধক্যজনিত অসুস্থতার কারণেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। গত মাসেই অমলাশঙ্ককের ১০১তম জন্মদিন সেলিব্রেট করেছিল তাঁর পরিবার।  তারপর এক মাস না-কাটতেই শুক্রবার ভোরে তাঁর প্রয়াণের খবরে শোকস্তব্ধ সবাই। অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত জানালেন অমলাশঙ্করকে নিয়ে   মন খুললেন আমাদের সংবাদমাধ্য়মের কাছে।

ঋতুপর্ণা জানিয়েছেন,  'একটা বড় মহাযুগের অবসান। আমরা ওনার সান্নিদ্ধ অনেক বছর ধরে পেয়েছি। কিছুদিন আগেই আমি ওনার শততম জন্মবার্ষিকীর শুভেচ্ছা পাঠিয়েছিলাম। ভীষণ ভাল লাগতো এটা ভেবে যে, ওনার মতো এত বড় শিল্পী আমাদের মাঝে ছিলেন এবং সবাইকে তাঁর উপস্থিতি দিয়ে  অনুপ্রেরণা দিয়ে যেতেন। (মমতাশঙ্কর) মমদির কাছে জেনেছি, উনি কীভাবে কমিউনিকেট করেন, সেগুলি জেনে খুব ভাল লাগত। কিছুদিন আগেই ওনার আর শ্রদ্ধেয় উদয়শঙ্করের একটা কম্পোজিশন দেখছিলাম,অসাধারণ-অদ্ভুত। নাচকে ওরা কীভাবে যে ডিফাইন করেছিলেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। নাচের যে মৌলিক স্টাইল, বলা যায় তাঁরা হলেন এক এবং অন্য়তম নিদর্শন।'

অপরদিকে, 'শ্রদ্ধেয় অমলাশঙ্করের করা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'সামান্য ক্ষতি' দেখে মুগ্ধ হয়েছিলাম।  ওই ভাবে যে একটা কম্পোজিশন করা যায়, ভাবলেই অবাক হতে হয়। রাণী ভূমিকায়  এক্সপ্রেশন থেকে শুরু করে হাতের মুদ্রায় তিনি খুবই অনবদ্য। অনেক কিছু দেখেছেন তিন নিজেও। নিজের মেয়ে, নাতি-নাতনি, তাঁদের নাচ সবেতেই তিনি সমৃদ্ধ।  আমার মনে হয় উনি একজন সত্য়িকারের শিল্পী, আজও উনি আমাদের কাছে একটা বিস্ময়,'বলে জানিয়েছেন অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।