সলমনের বিপরীতে এবার পর্দায় জুটি বাঁধতে চলেছেন আলিয়া ভাট। সঞ্জয়লীলা বনশালির পরিচালনায় আগামী ছবি 'ইনসালাহ'-তে দর্শকরা পাবেন আলিয়া-সলমনকে। খবর সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রকাশ পাওয়া মাত্রই প্রশ্নের ঝড় হঠে দর্শকমহলে। বাধ সাজে বয়সের ফারাক। পর্দায় নায়ক-নায়িকার সামঞ্জস্যতার ওপর নির্ভর করে চরিত্রের রসায়ণ, সেক্ষেত্রে আলিয়া কতটা পর্দায় সাচ্ছন্দ্য তা নিয়ে আলোচনা এখন তুঙ্গে।  

এ খবর ছড়ানো মাত্রই চোখ কপালে ওঠে কিছু সংখ্যক দর্শকের। সলমন খানের বিপরীতে আলিয়া ভাট! বয়সের ফারক ২৭ বছর। ১৯৯৯ সালে যখন সলমন খানের অন্যতম হিট ছবি 'হাম দিল দে চুকে সনম' মুক্তি পায়, তখন তার বলিউড কেরিয়ারে দশ বছর অতিক্রান্ত। অপরদিকে ঠিক সেই বছর আলিয়ার হাতেখড়ি হয়েছিল। মাত্র ৭ বছরের আলিয়া অভিনয় করে সংঘর্ষ(১৯৯৯) ছবিতে।

সলমন খান শুধু নন কয়েক বছর আগে আলিয়া ভাট-কে পাওয়া গিয়েছিল শাহরুখ খান-এর বিপরীতে। কিন্তু, সেখাানে শাহরুখ-এর নায়িকা হিসাবে আলিয়া-কে স্থাপন করা হয়নি। বরং এক তরুণীর সঙ্গে এক প্রৌঢ়ের বন্ধুত্বের সম্পর্ককে তুলে ধরা হয়েছিল। 'হ্যালো জিন্দেগি' নামে সেই ছবির চিত্রনাট্য অনুযায়ী শাহরুখ ও আলিয়ার সম্পর্কটা ছিল মানানসই। কিন্তু, সঞ্জয়লীলা বনশালীর ছবিতে সলমন খান-এর সঙ্গে আলিয়া ভাটের প্রেমের সম্পর্ক-ই দেখানোর কথা। বনশালী ইউনিট সূত্রে এমনটাই খবর। ফলে দর্শকের মনে প্রশ্ন, কতটা মানানসই হবে এই জুটি!

যদিও এসকল প্রশ্নকে উড়িয়ে দিয়ে আলিয়া জানিয়েছন, 'সলমন খান ও সঞ্জয়লীলা বনশালী যথেষ্ট পরিণত বুদ্ধিসম্পন্ন। অবশ্যই সবটা ভেবে ওনারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এ ধরনের কোন প্রশ্নের সন্মুখিন এখনও অবধি আমি হইনি। কাজটা হাতে পেয়ে বরং আমি খুবই উৎসাহিত।'

অপরদিকে দর্শকমহলের একাংশ এ বিষয় গুরুত্ব না দিয়ে কেবলই অপেক্ষায় রয়েছেন সলমন-আলিয়া জুটির প্রথম লুকের পোস্টারের।