আতঙ্কের আর এক নাম করোনা। একের পর এক শহরে মুহূর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে এই রোগ। এই করোনা আতঙ্ক এখন ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র। মুহূর্তের মধ্যে একজনের থেকে আরেকজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস।  করোনা ভাইরাসের বাহক হল মানুষ। মানুষের সংস্পর্শেই সংক্রমিত হচ্ছে এই করোনা ভাইরাস । মানুষের নিঃশ্বাস প্রশ্বাসের সঙ্গেই ছড়িয়ে যাচ্ছে এই রোগের জীবানু।  যত দিন যাচ্ছে ততই যেন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা। করোনা আতঙ্ক এবার হলিউডে।  একের পর এক অভিনেতা-অভিনেত্রীরাও করোনো নিয়ে আতঙ্কিত। সারা দেশে  মহামারির আকার ধারণ করেছে এই করোনা ভাইরাস।  ইতিমধ্যে মুম্বইতে জারি হয়েছে ১৪৪ ধারা।  আর এই সময়ের মধ্যেই সাড়া ফেলেছে এক হলিউড ছবি।

আরও পড়ুন-পরীক্ষার ফাঁকেই চলছে টেলি সিরিয়ালের শ্যুটিং, কীভাবে সামলাচ্ছেন দিতিপ্রিয়া...

২০১১ সালে মুক্তি পায় হলিউডি ছবি'কন্টাজিয়ন'।  ছবির মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন ম্যাট ড্যামন, জুড ল, গিনিথ প্যালট্র, কেট উইন্সলেট, ম্যারিয়ন কটিলার্ড সহ আরও অনেকেই। ছবির পরিচালক ছিলেন স্টিভেন সদেরবার্গ। কিন্তু ছবির চিত্রনাট্যকার স্কট জেড বার্নসকে নিয়েই বর্তমানে বেশি আলোচনা হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এর কারণ একটাই, ছবির মূল গল্পের সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতির হবহু মিল রয়েছে। 

 


ছবির মূল গল্পই ছিল সারা বিশ্বে একটা মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এবং যার উৎপত্তিস্থল হল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া। ছবিতে ওই মারণ ভাইরাস নিয়ে যা যা দেখানো হয়েছে তার সঙ্গে মিল রয়েছে করোনা ভাইরাসের। সেখানে এমনই একটি ভাইরাসকে দেখানো হয়েছিল যা কিনা বাতাসে ভেসে বেড়ায় এবং শরীরে ঢুকে পড়লে রোদীর মৃত্যু অনিবার্য। সমস্ত চিকিৎসক এভং গবেষকদের কাছে এই ভাইরাসের কোনও প্রতিষেধক নেই। মুহূর্তের মধ্যে সারা পৃথিবীতে মহামারীর আকার ধারণ করে এই রোগ। ছবিটি বক্স অফিসেও দারুণ ব্যবসা করেছিল।  সমালোচকদেরও প্রশংসা কুড়িয়েছিল এই ছবি।

আরও পড়ুন-করোনার কোপে বিপর্যস্ত বাংলার বিনোদন জগৎ, বন্ধ হল শ্যুটিং...

তবে শুধু এই ছবিই নয়, এই ধরনের বহু ছবির তালিকা রয়েছে হলিউডে। যারা সেই সময়ে এই ছবি দেখেছিলেন তারা সেই ছবির সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি দেখে মিল খুঁজে পাচ্ছেন। হলিউড স্টার টম হ্যাঙ্কস এবং তার স্ত্রী রিটা উইলসনের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর শুনেই  শোরগোল আরও বেড়ে গিয়েছে। আরও বেশি করে করোনা নিয়ে সচেতন হচ্ছেন সকলেই। চিন, ইরান, ইতালি সহ এবার সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে ভারতের নাম।  ইতিমধ্যেই ভারতে প্রথম একজন করোনার বলিও হয়েছে। সৌদি আরব থেকে সম্প্রতি কর্নাটকে ফেরেন বছর ৭৬-এর  কালবুর্গি। সৌদি থেকে ফেরার পর থেকেই নিউমোনিয়া এবং শ্বাসকষ্ট শুরু হয় তাঁর। তখনই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। জানা যায়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েই কালবুর্গির মৃত্যু হয়েছে।