ঐশ্বর্য রাইয়ের জীবনের সঙ্গে নির্বাচনের তুলনা করে নিন্দিত হচ্ছেন বিবেক ওবেরয়। অভিনেত্রী সোনম কাপুরও বিবেক ওবেরয়ের এই পোস্টটিকে নিম্নমানের বলে টুইট করেছেন। কিন্তু বিবেক এই মিম-এর জন্য ক্ষমা চাইতে রাজি নন। উলটে এবার তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও এই বিষয়টিতে টেনে আনলেন।

সোমবার একটি মিম শেয়ার করেন বিবেক ওবেরয়। মিমটিতে ঐশ্বর্যকে তিন জনের সঙ্গে পর পর দেখা যাচ্ছে- সলমন খান, স্বয়ং বিবেক ওবেরয় এবং অভিষেক বচ্চন। একথা সকলেই জানেন, এক সময় সলমন খানের সঙ্গে সম্পর্কে ছিলেন ঐশ্বর্য। সেই সম্পর্ক ভেঙে যায়। তার পরে বিবেকের সঙ্গেও বেশ কিছুদিন সম্পর্কে ছিলেন তিনি। সেই সম্পর্কও টেকেনি। শেষে অভিষেকের সঙ্গে বিয়ে হয় ঐশ্বর্যের। এই বিষয়টিই বিবেকের পোস্ট করা মিমটিতে ফুটে উঠেছে। 

সলমনের সঙ্গে ছবিটি তুলনা করা হয়েছে মতামত সমীক্ষা বা ওপিনিয়ন পোলের সঙ্গে। বিবেক নিজের ছবিটি তুলনা করেছেন এক্সিট পোল-এর সঙ্গে আর অভিষেকের সঙ্গে ঐশ্বর্যের ছবিটি তুলনা করা হয়েছে  অন্তিম ফলাফলের সঙ্গে। মিমটির ক্যাপশনে বিবেক লেখেন- "এটি ক্রিয়েটিভ। এর মধ্যে রাজনীতি নেই। শুধুই জীবন। "

এই মিমটি শেয়ার করার পর থেকেই সোশ্য়াল মিডিয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েন বিবেক। এক সংবাদমাধ্যমের কাছে বলেন, "মানুষ কেন এটাকে এত বড় করছে?"

এই প্রসঙ্গেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে টানলেন বিবেক। বললেন, "শুধু একটা মিম শেয়ার করার জন্য দিদি চায় কাউকে জেলে ঢুকিয়ে দেওয়া হোক। এবার কিছু লোক চাইছে বিবেক ওবেরয়কে জেলে ঢোকানো হোক। আমার ছবি মুক্তি হওয়াকে এরা থামাতে পারেনি। তাই এখন আমাকে আটকাতে চাইছে। খুবই শিশুসুলভ।" 

প্রসঙ্গত সোনম কাপুর এই মিমটির সমালোচনা করলে তাঁকেও পালটা জবাব দিয়েছেন বিবেক। তিনি বলেছেন, "আপনি (সোনম) আপনার ছবিতে একটু কম ওভারঅ্যাক্টিং করুন। আর সোশ্যাল মিডিয়াতেও একটু কম ওভার রিয়্যাক্ট করুন। আমি মহিলাদের প্রগতির জন্য ১০ বছর ধরে কাজ করছি। আমি মনে করি না এটা কারও ভাবাবেগে আঘাত করছে।" 

উল্লেখ্য, খুব শীঘ্রই মুক্তি পেতে চলেছে পিএম মোদী। ছবিতে মোদীর ভূমিকায় বিবেককেই দেখা যাবে।