দোল উপলক্ষে মিষ্টির দোকানগুলি ইতিমধ্যে বিভিন্ন ধরণের মিষ্টি দিয়ে সেজে উঠেছে । যে কোনও উত্সবে মিষ্টি মুখ করতেই হবে। এক কথায় দোলে সব নিয়মের বাইরে বেরিয়ে একটু মিষ্টি বেশি খাওয়াই যায়। আর বাঙালি মানেই যে খাওয়ার প্রতি একটু বেশিই টান থাকে তাও সকলের জানা। তবে অনেকেই আছেন যারা রং খেলার পরেই মিষ্টিমুখ করতে পছন্দ করেন। তাই দোলের দিন বাড়িতে আসা অতিথি ও বন্ধুদের জন্য, আপনি চাইলে বানিয়ে নিন চমচম। এই মিষ্টি পছন্দ করেন না এমন বাঙালি বোধহয় খুঁজে পাওয়া যাবে না। চলুন জেনে নেই কিভাবে চটজলদি বানানো যায় হোলি স্পেশাল মিষ্টি পুর ভরা চমচম।

আরও পড়ুন- হোলি স্পেশাল রেসিপি, রঙ খেলার মজা জমে উঠুক সুস্বাদু এই মিষ্টির সঙ্গে
মালাই চমচম বানাতে লাগবে-
 
৪০০ গ্রাম পনির
১ কাপ খোয়া ক্ষির
২কাপ চিনি
২ ফোঁটা ফুড কালার হলুদ
১ লিটার দুধ
১ চা চামচ এলাচ গুঁড়ো 
কিছুটা আমন্ড কুঁচি 
১ চা চামচ গোলাপ জল
৪-৫ টা চেরি ফল 
১ চামচ পেস্তা বাদাম কুঁচি (ইচ্ছে হলে দিতে পারেন)
স্বাদন মতন চিনি

আরও পড়ুন- হোলির মজা জমে উঠুক ভাঙের শরবতের সঙ্গে, রইল বানানোর পদ্ধতি

যেভাবে বানাবেন-

প্রথমে দুধের সঙ্গে এলাচ গুঁড়ো ও হাফ কাপ মত চিনি মিশিয়ে ফুটতে দিন। মিশ্রণটি ফুটে ঘন আর দুধের পরিমান প্রায় অর্ধেক হওয়া অবধি ফুটতে দিন। পনির এর সঙ্গে সামান্য ময়দার গুঁড়ো নিয়ে ভালে করে মেখে নিন এর মধ্যে ফুড কালার দিয়ে দিন। এরপর পনির দিয়ে চমচমের আকারে তৈরী করে, হাতের তালুতে নিয়ে চমচমের আকারে গড়ে নিন। মাঝখান থেকে কেটে খোয়াক্ষিরের পুর দিয়ে দিন। উপর থেকে চেরি সাজানোর জন্য দিয়ে দিন ছবিতে যেভাবে দেওয়া আছে। বাকি চিনি দিয়ে সুগার সিরাপ বা সিরা তৈরি করে ঠান্ডা হতে দিন। পনিরগুলো সিরায় দিয়ে কয়েক মিনিট ফুটিয়ে নিন। এ বার সিরায় ফোটানো চমচম দুধ ও চিনির মিশ্রণে ঢেলে দিন। নামিয়ে ঠান্ডা করতে দিন। উপর থেকে গোলাপ জল দিয়ে দিন। প্রয়োজনে আমন্ড কুঁচি ও পেস্তা বাদাম দিয়ে সাজিয়ে দিন। ঠান্ডা করে পরিবেশন করুন ঘরে বানানো সুস্বাদু পুর ভরা চমচম। আর জমিয়ে তুলুন দোল খেলা।