বিশ্ব জুড়ে ক্রীড়া ক্ষেত্রে নিজের থাবা ক্রমশ আরও জোরদার করছে করোনা ভাইরাস। করোনা ভাইরাসে সারা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত ১১ হাজারেরও বেশি  হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২ লক্ষ ৭৫ হাজার। ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সারা পৃথিবীতে বন্ধ করা হয়েছে বা স্থগিত রাখা হয়ছে জনপ্রিয় স্পোর্টিং ইভেন্টগুলি। তালিকায় রয়েছে লা লিগা, সিরি এ, প্রিমিয়ার লিগ, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সহ একের পর এক হাই-প্রোফাইল ফুটবল টুর্নামেন্টও। ফের কবে শুরু হবে টুর্নামেন্টগুলি, আদৌ হবে কি না, হলেই বা কিভাবে হবে তা নিয়ে এখনও কোনও সদুত্তর পাওয়া যায়নি আয়োজকদের। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আলোচনার পরই পরবর্তীসিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃজাপানে পৌছল অলিম্পিক মশাল, করোনা আতঙ্কে প্রশ্নে টোকিও ২০২০-এর ভবিষ্যৎ

করোনার থাবায় ইপিএলেরও একাধিক প্লেয়ার ও কোচ আক্রান্ত হয়ছেন। আর্সেনাল কোচ মাইকেল আর্তেতা, চেলসির উইঙ্গার ক্যালাম হাডসন-ওডোই ,ম্যাঞ্চেস্টার সিটির ডিফেন্ডার বেঞ্জামিন মেন্ডির পরিবারের এক সদস্যের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ। সকলেই আপাতত চিকিৎসা পদ্ধিতির মধ্যে রয়েছে। এছাড়াও প্রায় সবকটি বড় দলের প্লেয়ারদের রাখা হয়েছে কোয়ারেন্টাইনে। এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতির মধ্যেই ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ভবিষ্যৎ নিয়ে বৈঠকে বসেছিলেন ইপিএল কর্তৃপক্ষ। যোগ দিয়েছিলেন প্রথম ডিভিশনের ২০টি ক্লাবই। সেখানে বাস্তব পরিস্থিতির কথা বিচার করে মে মাসের আগে কোনওভাবেই ইপিএল শুরু করা সম্ভব নয় বলে জানানো হয়েছে। ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকছে টুর্নামেন্ট। শুধু ইপিএল নয়, ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে ইএফএল ও উইমেন্স লিগের খেলাগুলোও। বৈঠকের পর প্রিমিয়র লিগ কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, ‘প্রিমিয়র লিগ, ইএফএল প্রত্যেকেই বুঝেছে এটা ভীষণই কঠিন সময় আমাদের জন্য। পাশাপাশি করোনা য় আক্রান্তদের জন্য আমরা উদ্বিগ্ন।’

আরও পড়ুনঃএবার করোনা আতঙ্কে ভুগছেন পিভি সিন্ধু, সাইনা নেওয়াল সহ ভারতীয় শাটলাররা

আরও পড়ুনঃপ্রধানমন্ত্রীর জনতা কার্ফুকে সমর্থন বিরাট কোহলির, দেশবাসীকে সতর্ক ও সুস্থ থাকার পরামর্শ

৩০ এপ্রিল পর্যন্ত খেলা বন্ধ রাখলেও, প্রত্যেকটি লিগ যে তারা শেষ করতে বদ্ধপরিকর তাও জানানো হয়েছে ইপিএল কর্তৃপক্ষের তরফে। কিন্তু  ব্রিটিশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের নিয়ম অনুযায়ী কোনও টুর্নামেন্টই ১ জুনের পর আর আয়োজন করা সম্ভব নয়। আর সেখানেই দানা বেধেছে বিতর্ক। কারণ মে মাসে টুর্নামেন্ট শুরু করার ইচ্ছে থাকলেও, করোনা পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে তা নিয়েও এখনও সন্দিহান। ফলে মে মাসের কবে ইপিএল শুরু করা হবে তার কোনও নির্দিষ্ট তারিখ দেওয়া সম্ভব নয় ইপিএল কর্তৃপক্ষের তরফে। অপরদিকে, ব্রিটিশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের নিয়ম অনুযায়ী পয়লা জুনের মধ্যে টুর্নামেন্ট শেষে করতে হলে মাস খানেকরও  কম সময়ে গোটা টুর্নামেন্ট শেষ করা সম্ভব কিনা তা নিয়েও তৈরি হয়েছে বিতর্ক। ফলে আগামি দিনে সব পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে সঠিক সময়ের মধ্যে ইপিএল শেষ করাটা বিশাল চ্যালেঞ্জ বলেই মনে করছেন ফুটবল বিশেষজ্ঞরা। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে, ইপিএলের ভবিষ্যৎ নিয়েও উঠছে প্রশ্ন।