করোনা আতঙ্কে ত্রস্ত গোটা দুনিয়া। ২ লক্ষ ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। ১১ হাজার ছাড়িয়েছ মৃত্যু মিছিল। ক্রীড়া ক্ষেত্রে মারণ ভাইরাসের থাবা অব্যাহত। দিনের পর দিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। ফলে ফুটবল, ক্রিকেট, টেনিস থেকে ব্যাডমিন্টন সব ক্ষেত্রেই বাড়ছে  আতঙ্ক। এবার করোনা আতঙ্ক চিন্তা বাড়িয়েছে দুই ভারতীয় শাটলার পিভি সিন্ধু ও সাইনা নেওয়ালের। কারণ সদ্য শেষ হয়েছে অল ইংল্যান্ড ওপেন। করোনা আতঙ্কের মধ্যে টুর্নামেন্ট করা নিয়ে আগেই প্রশ্ন তুলেছিলেন সাইনা নেওয়াল। এবার অল ইংল্যান্ড এপেনেই অংশগ্রহণকারী এক প্রতিযোগীর শরীরে মিলল করোনা ভাইরাসের নমুনা। যা চিন্তায় ফেলে দিয়েছে  প্রতিযোগীতার অন্য শাটলারদেরও। আরও এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন সিন্ধু-সাইনা।  মহিলা শাটলার সাইনা-সিন্ধু-পোনাপ্পা ছাড়া ভারত থেকে পুরুষ শাটলারদের মধ্যে অংশ নিয়েছিলেন কিদাম্বি শ্রীকান্ত, সাই প্রণীত ও লক্ষ্য সেন।  ফলে খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ভারতীয় শাটলাররা।

আরও পড়ুনঃপ্রধানমন্ত্রীর জনতা কার্ফুকে সমর্থন বিরাট কোহলির, দেশবাসীকে সতর্ক ও সুস্থ থাকার পরামর্শ

আরও পড়ুনঃ'স্টে অ্যাট হোম' চ্যালেঞ্জ গ্রহণ ক্রিস গেইলের, দেখুন কী করলেন ক্যারেবিয়ান তারকা

সোশ্যাল মিডিয়ায় ডেনমার্কের শাটলার হান্স ক্রিস্টিয়ান একটি পোস্টাা শেয়ার করেছেন। আর সেই পোস্ট থেকেই  এখন রীতিমতো উদ্বেগের কারণ অল ইংল্যান্ড ওপেন চ্যাম্পিয়নশিপে অংশগ্রহণ করা শাটলারদের কাছে। তাইওয়ানের একটি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ ১৫ মার্চ শেষ হওয়া টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করা এক তাইওয়ান শাটলারের দেহে ধরা পড়েছে মারণ করোনা ভাইরাসের নমুনা। ডেনমার্কের শাটলার ক্রিস্টিয়ান টুর্নামেন্ট চলাকালীন তাইওয়ানের শাটলারের সঙ্গে একই বাস শেয়ার করেছেন জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। একই টুর্নামেন্টে ভারত থেকে অংশ নিয়েছিলেন সাইনা নেহওয়াল, পিভি সিন্ধু, অশ্বিনী পোনাপ্পারা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাইওয়ান শাটলারের করোনা আক্রান্তের খবর শেয়ার করে এরা প্রত্যেকেই নিজেদের উৎকণ্ঠার কথা জানিয়েছেন। ফলে টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী  সকল শাটলারদের কপালেই এখন চিন্তায় ভাঁজ। সোশাল মিডিয়ায় নিজেদের উদ্বেগের কথা স্বীকারও করেছেন শাটলাররা। নিজেদের পর্যবেক্ষণে রাখা বা কোয়ারেন্টাইনে চলে যাওয়ার কথাও ভাবছেন অনেক শাটলার। 

আরও পড়ুনঃঅস্ট্রেলিয়ায় করোনা মোকাবিলায় পাশে শেন ওয়ার্ন,হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করবে ওয়ার্নের জিন কোম্পানি