যাবতীয় আশা আকাঙ্ক্ষার দোলাচল কাটিয়ে নতুন আশার আলো দেখতে পেয়েছে রেড অ্যান্ড গোল্ড ব্রিগেড। সব কিছু পরিকল্পনামাফিক চললে, কোনও ক্লাবের সাথে যুক্ত বা মার্জ না হয়েই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগানের সাথে সাথে এই মরসুমের আইএসএলেই অংশগ্রহণ করতে চলেছে ইস্টবেঙ্গল। এখনও অবধি পাওয়া খবর অনুযায়ী, দেশের সবচেয়ে ধনী শিল্পপতিদের একজন, হরি মোহন বাঙ্গুরের সংস্থা শ্রী সিমেন্টকে নিজেদের বিনিয়োগকারী হিসেবে চূড়ান্ত করে ফেলেছে এই বছরই শতবর্ষ পূর্ন করা ক্লাব। শোনা যাচ্ছে ইনভেস্টরের সাথে সাথে আরও দুটি স্পনসরের সাথেও কথাবার্তা চূড়ান্ত ইস্টবেঙ্গলের। তাই দীর্ঘদিনের উৎকণ্ঠা কাটিয়ে এখন আইএসএলের স্বপ্নে বুদ লাল-হলুদ ভক্তরা। 

আরও পড়ুনঃছুটির দিনে সমুদ্রস্নানে কিংসরা, 'বিন্দাস মুডে' পাওয়া গেল রাহুল, শামি, কুম্বলেদের

মোহনবাগান নতুন অবতারে আইএসএলে পৌঁছলেও ইস্টবেঙ্গলের আইএসএল খেলা দীর্ঘদিনের টানাপোড়েন আশঙ্কার জন্ম দিয়েছিল হয়তো এশিয়ার সর্ববৃহৎ ফুটবল প্রতিদ্বন্দ্বীতা দেখা থেকে বঞ্চিত হবে লাখ লাখ ভক্ত। কিন্তু ইস্টবেঙ্গলের এই চুক্তির খবর অফিসিয়াল বলে ঘোষণা হলে দুই প্রধানের মাঠের লড়াই   ফুটবলভক্তদের আইএসএলের অন্যতম বড় আকর্ষণ হয়ে উঠবে। 

আরও পড়ুনঃকী মনে হয়েছিল, যখন জানতে পারেন অনুষ্কা অন্তঃসত্ত্বা, খোলসা করলেন বিরাট

আরও পড়ুনঃজিম থেকে অনুশীলন,যুদ্ধংদেহী মেজাজে চলছে রোহিত-হার্দিকদের প্রস্তুতি, দেখুন ছবি

নানান জায়গা থেকে বিশেষ উদ্দেশ্যে কিছু সংবাদমাধ্যম প্রায় নিশ্চিত ভাবেই জানিয়ে দিয়েছিল টুর্নামেন্ট পরিচালনার দায়িত্বে থাকা এফএসডিএল কর্তৃপক্ষ আগেই দশ দলকে নিয়ে বৈঠক করে জানিয়ে দিয়েছে, তাই এই বারের টুর্নামেন্টে বাড়ানো হবে না দলের সংখ্যা। যদিও সরাসরি কোথাওই সেই কথা একবারও উল্লেখ করেনি এফএসডিএল। এই আবহে সমর্থকদের মনে বাড়ছিল হতাশা। কিন্তু চিরকালই দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া মুহুর্তর সময় ইস্টবেঙ্গল ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে। হারার আগেই হার মানে না। এ ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। হাতের বাইরে চলে যাওয়া ম্যাচ তাঁরা ফিরিয়ে আনেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাহায্যে। ধারণা করা হচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীর অনুরোধেই ইস্টবেঙ্গলের জন্য লগ্নিকারী সংস্থা খুঁজে দেওয়ার জন্য সচেষ্ট হন নীতা অম্বানিরা। যদিও কয়েকটি সংস্থার সঙ্গে কথাবার্তা এগোলেও তা ইস্টবেঙ্গল কর্তারা শেয়ার ছাড়া নিয়ে সহমত না হতে পারায় মাঝপথেই থেমে যায় তাদের সাথে কথাবার্তা। শেষ পর্যন্ত শোনা যাচ্ছে বাধ্য হয়েই নিজেদের দাবি সম্পর্কে বেশ খানিকটা নরম হয়েই বাংলার সংস্থা শ্রী সিমেন্টের সঙ্গে চুক্তি পাকা করে ইস্টবেঙ্গল কর্তারা। ​শোনা যাচ্ছে পচাঁশি শতাংশ শেয়ার থাকবে শ্রী সিমেন্টের। বাকি পনেরো শতাংশ থাকবে ক্লাবের হাতে। বৃহস্পতিবার বা শুক্রবারের মধ্যেই সরকারি ভাবে ইনভেস্টরের কথা জানিয়ে দেবে ইস্টবেঙ্গল।