শুক্রবার রাতেই নিজেদের ফেসবুক পেজের কভার ফোটো চেঞ্জ করে মোহনবাগানকে আইলিগ চ্যাম্পিয়ন করার ইঙ্গিত দিয়ে দিয়েছিল ফেডারেশন কর্তারা। অপেক্ষা ছিল শুধু সরকারি ঘোষণার। অবশেষে সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে মোহনবাগানকে ২০১৯-২০ মরসুমের আইলিগ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা  করল সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন। শনিবার আইলিগের ভাগ্য নির্ধারণ করতে বৈঠকে বসছিল ফেডারেশনের লিগ কমিটি। সেখানেই ফেডারেশনের সহ-সভাপতি সুব্রত দত্ত ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে মোহনবাগানকে লিগ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেন। একইসঙ্গে দেশ জুড়ে করোনা ভয়াবহতার বিচার করে বাকি ২৮টি ম্যাচ বাতিল করারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিটি। এছড়াও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ছে বৈঠক। মোহনবাগানকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা ছাড়াও বাকি পুরস্কার মূল্য দশটি ক্লাবের মধ্যে সমান ভাবে ভাগ করে দেওয়া হবে এবং এই মরসুমে কোনও দলের অবনমন হবে না।

আরও পড়ুনঃলকডাউনে বাংলার ক্রিকেটারদের অনলাইন ক্লাস নেবেন ভিভিএস লক্ষ্মণ

আরও পড়ুনঃ'টিম মাস্ক ফোর্স',করোনার বিরুদ্ধে সচেতনতা গড়তে নয়া দল,যোগ দিতে পারেন আপনিও

মোহনবাগানকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করার ইঙ্গিত আগেই দিয়েছিল ফেডারেশন।শুক্রবার রাতে হঠাৎই বদলে ফেলা হল আই লিগের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজের কভার ফটো। আই লিগের সরকারি ফেসবুক পেজে যে ছবিটিকে কভার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে সেটি মোহনবাগান সমর্থকদের উল্লাসের ছবি। এবং সেই ছবির মাঝখানে লেখা আছে ‘ভারতসেরা মোহনবাগান।’ যা সবুজ-মেরুনকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করারি ইঙ্গিত বলে মনে করে নেয় সমর্থকরা। এই ছবি প্রকাশ্য আসার পর থেকেই খুশির আবহ ছিল মোহনবাগান কর্তা, প্লেয়ার থেকে শুরু করে কর্মকর্তাদের মধ্যে। 

 

আরও পড়ুনঃএবার করোনার থাবা ২০২২ কাতার ফুটবল বিশ্বকাপে,আক্রান্ত স্টেডিয়াম নির্মাণে নিযুক্ত মোট ৮ শ্রমিক

কিন্তু এদিন ফেডারেশন সরকারিভাবে মোহনবাগানকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করে দেওয়ায় এখন আদালতে যাওয়া ছাড়া ইস্টবেঙ্গলের আর কোনও উপায় নেই। মোহনবাগানকে চ্যাম্পিয়ন আখ্যা দিয়ে এএফসি ইতিমধ্যেই চিঠি দিয়ে দিয়েছে। ফিফার তরফেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, নিজেদের লিগ নিয়ে যে কোনও সিদ্ধান্ত ফেডারেশন নিজেদের মতো করেই নিতে পারে। সেইমতো এদিন ফেডারেশনের লিগ কমিটির বৈঠকে মোহনবাগানকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণায় সিলমোহর পড়ে যায়। মোহনবাগানও তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে ফেডারেশন ও সেই সকল ক্লাবদের ধন্যবাদ জানিয়ে পোস্ট করে যারা সবুজ মেরুণকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে মেনে নিয়েছিল। শনিবার বিকেলের ঘোষণার পর সেই খুশি আরও দ্বিগুন হল। যদিও লকডাউন চলার কারণে কোনও বিজয় উৎসবের আয়োজন করা হয়নি।