চলতি সপ্তাহেই ফুচবল বিশ্বের সব থেকে বড় খবরটা সামনে এসেছিল। বার্সা ছাড়ার ইচ্ছে প্রকাশ করে ক্লাব কর্তৃপক্ষকে ফ্যাক্স করেছিলেন লিওনেল মেসি। মেসির বার্সা ছাড়ার ইচ্ছে প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে ফুটবল বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। বার্সার ক্লাবের বাইরে বিক্ষোভও দেখান বার্সা ও মেসির সমর্থকরা। ক্লাবের বর্তমান প্রশাসকদের উপর ক্ষোভ উগড়ে দেন সকলে। একইসঙ্গে জল্পনা শুরু হয়ে কোন দলে যোগ দেবেন মেসি। শুরু হয়ে যায় এযাবৎ ফুটবল ইতিহাসের দলবদলের বাজারে সবচেয়ে রোমহর্ষক অধ্যায়টা। 

মেসিকে দলে নিতে আগ্রহ প্রকাশ করে একাধিক ক্লাব। সেই তালিকায় নাম রয়েছে ইন্টার মিলান, পিএসজি, ম্যাঞ্চেস্টার ইইনাইটেড, ম্যাঞ্চেস্টার সিটির নাম। তবে শোনা যাচ্ছে মেসিকে পাওয়ার দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে ধোনির প্রাক্তন গুরু পেপ গুয়ার্দিওয়ালার ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। তারউপর একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, মেসির বাবা পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন মেসি ম্যাঞ্চেস্টার সিটিতেই যোগ দিতে চান। আসলে ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, মেসিকে পাওয়ার দৌড়ে পিছিয়ে পড়া মেসির বাবা জর্জ মেন্ডিসের দ্বারসথ হওয়ার চেষ্টা করে পিএসজি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু টেলিফোনে পিএসজি’র ব্রাজিলিয়ান ডিরেক্টর লিওনার্দোকে জর্জ মেন্ডিস সাফ জানিয়েছেন, তার ছেলে মেসি ইতিমধ্যেই ম্যাঞ্চেস্টার সিটিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন।

এই খবর প্রকাশ্যে আসার পরই হতাশ হয়ে পড়েছে মেসিকে পাওয়ার দৌড়ে থাকা একাধিক ক্লাব। যদিও ম্যান সিটির পক্ষ থেকে সরকারিভাবে এবিষয়ে কিছু জানানো হয়নি। তবে ইনস্টাগ্রামে সম্প্রতি ম্যান সিটিকে মেসি ফলো করায় সেই জল্পনা আরও মাত্রা পেয়েছে। ২০০৮-১২ বার্সেলোনায় এই স্প্যানিশ কোচের অধীনেই কাতালান ক্লাবে সেরা সময়টা কাটিয়েছিলেন মেসি। ফলে পুরোনো গুরুর কাছেউ মেসির ফিরে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। আর ফুটবল মহলে যা গুঞ্জন তাতে মেসেরি স্কাই-ব্লু জার্সি  পড়া শুধু সময়ের অপেক্ষা।